বিধানসভার মধ্যেই বামফ্রন্টের মহিলা বিধায়ককে উদ্দেশ করে অশালীন শব্দ প্রয়োগ করে হাতজোড় করে ক্ষমা চাইলেন তৃণমূল বিধায়ক। তৃণমূল বিধায়কের মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করলেন শাসক দলের বিধায়করাও।

এ দিন বাজেট নিয়ে আলোচনা চলার সময়ই এই ঘটনা ঘটে। বাজেট নিয়ে ভাষণ দিচ্ছিলেন মেমারির তৃণমূল বিধায়ক নার্গিস বেগম। তিনি বক্তব্য রাখার সময় রাজ্য সরকারের সমালোচনা করে নানা মন্তব্য ছুড়ে দিচ্ছিলেন বিরোধী দলের বিধায়করা। বিধানসভার অধিবেশন চলাকালীন যা অত্যন্ত স্বাভাবিক। 

সেই সময় জামুড়িয়ার বাম বিধায়ক জাহানারা বেগমও রাজ্যে নারী নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে নার্গিস বেগমের দিকে মন্তব্য ছুড়ে দেন জাহানারা। বাম বিধায়কের এই মন্তব্য শুনেই রীতিমতো ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন তৃণমূল বিধায়ক নার্গিস বেগম। বাম বিধায়ককে উদ্দেশ করে অত্যন্ত অশালীন শব্দ প্রয়োগ করেন তিনি। বাম বিধায়কেরও 'ধর্ষণ' হবে বলেও মন্তব্য় করেন নার্গিস। 

তৃণমূল বিধায়কের এ হেন মন্তব্যে কার্যত স্তম্ভিত হয়ে যান সবপক্ষই। সঙ্গে সঙ্গে বিরোধীরা এই মন্তব্যের প্রতিবাদ করেন। তবে শুধু বিরোধীরাই নন, তৃণমূল বিধায়কের এই মন্তব্য শুনেই আপত্তি জানান পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম, বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় সহ তৃণমূলের মন্ত্রী এবং বিধায়করা। পরে এই মন্তব্যের সমালোচনা করেন পরিষদীয় মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ও। 

এই ঘটনার সময় বিধানসভায় ছিলেন না অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্য়ায়। ডেপুটি স্পিকার সেই সময় বিধানসভা চালাচ্ছিলেন। বামেদের তরফে অধ্যক্ষের ঘরে গিয়ে ঘটনার নিয়ে অভিযোগ জানানো হয়। সেখানে কান্নায় ভেঙে পড়েন অপমানিত জাহানারা বেগম। এর পর অধিবেশন ফের শুরু হলে তৃণমূল বিধায়কের মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করেন অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল বিধায়কের ওই অশালীন মন্তব্য বিধানসভার কার্যবিবরণী থেকেও বাদ দেওয়ার নির্দেশ দেন অধ্যক্ষ। 

পক্ষে বিপক্ষে প্রবল সমাালোচনার মুখে পড়ে শেষ পর্যন্ত বিধানসভার মধ্যেই হাতজোড় করে জাহানারার কাছে ক্ষমা চান নার্গিস। দলমত নির্বিশেষে সবাই স্বীকার করেন, তৃণমূল বিধায়কের মন্তব্যে বিধানসভার গরিমা ক্ষুন্ন হয়েছে। পরে সাংবাদিক বৈঠকেও ঘটনার কথা বলতে গিয়ে কার্যত কেঁদে ফেলেন বাম বিধায়ক জাহানারা।