করোনা আতঙ্কের মধ্য়েও পিছু ছাড়ছে না রাজনীতির রঙবাজি। প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিলে নজরে পড়তে পারে মহানগরবাসী। তাই রবিবার রাত নটায় বাতি জ্বালাবেন কিনা তা নিয়ে সংশয়ে রাজ্য়ের বহু পরিবার। মূলত, প্রদীপ জ্বালিয়ে তৃণমূলের চক্ষুশূল হতে চান না কেউ। 

প্রধানমন্ত্রীর সম্পর্কে কুরুচিকর পোস্ট, শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্য়ায়ের মেয়ের নামে অভিযোগ বিজেপির.

করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে দেশকে একজোট  হতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। রবিবার রাত ৯টায় ৯ মিনিটের জন্য় লাইট অফ করে প্রদীপ জ্বালাতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। যাদের কাছে মোমবাতি বা প্রদীপ নেই, তাদের বাড়ির বারান্দায়, ছাদে ,দরজায় টর্চ বা মোবাইলের আলো জ্বালাতে বলেছেন মোদী। কিন্তু এই আপাত নিরীহ কাজেও দ্বিধা বোধ করছে মহানগর। 

রাজ্য়ে করোনা মুক্ত আরও চার, বাড়ি ফিরলেন মোট ৭ জন..

অতীতে প্রধানমন্ত্রীর জনতা কারফিউয়ে কাসর বাজিয়ে বিপাকে পড়েছিলেন কলকাতার একাংশ।  ফেসবুকে কাসর, শাঁখ বাজানোর মুহূর্ত পোস্ট করতেই একদলের ট্রোলের মুখে পড়তে হয়েছিল তাদের। এবারও সেই একই আশঙ্কা করছে শহর। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, রাজ্য় রাজনীতিতে যারা সক্রিয়ভাবে বিজেপি করেন, তাদের ক্ষেত্রে এই বাতি জ্বালানোয় সমস্যা হবে না। তবে সাধারাণ মানুষ যারা প্রকাশ্য়ে নিজেদের রাজনৈতিক মতাদর্শ দেখাতে চান না, এতে বিপাকে পড়বেন তাঁরা।

রোগ চেপে রাখলে আরও বিপদ, দিদিকে খোঁচা 'লাল দাদা'র

সূত্রের খবর, রাজ্য়ে পুরসভা নির্বাচনের আগে মোদী সমর্থিত বাড়িগুলিকে নজরে রাখছে তৃণমূল। আগামী ভোটে এই বাড়িগুলির ওপর  শ্যেন দৃষ্টি থাকবে তাদের। কেন তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে তারা বিজেপির দিকে ঝুঁকছেন তা বুঝতে চেষ্টা করবে দল। আপাতত তাদের চিহ্নিত করার কাজ দেওয়া হয়েছে ওযার্ডের সক্রিয় কর্মীদের। এরাই সবিস্তারে ওয়ার্ড কমিটির কাছে সেই খবর জানাবেন।   

রাজ্য়ের বর্তমান পরিস্থিতি বলছে, ইতিমধ্য়েই পশ্চিমবঙ্গে করোনা আক্রান্ত হয়েছে ৪৯ জন। মৃতের সংখ্যা তিন। তবে খুশির খবর, এরই মধ্য়েই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৭ জন। বাকি আরও পাঁচজনকে শীঘ্রই হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়ার কথা। তাদের সবার করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।