করোনা আতঙ্কের মধ্য়েই মহাজাগতিক দৃশ্যের সাক্ষী থাকবে বিশ্ব। এবার পিঙ্ক মুন বা গোলাপি চাঁদের মতো মহাজাগতিক দৃশ্যের মুখোমুখি হতে চলেছে ব্রহ্মাণ্ড। আগামী ৯ এপ্রিল এই ছবি দেখেতে পাবে বিশ্ববাসী। 

জোড়া ঘূর্ণাবর্তের জের, সপ্তাহান্তে প্রবল ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস রাজ্য়ে.

ওইদিন সুপারমুন হিসেবে নিজেকে মেলে ধরবে পৃথিবীর একমাত্র উপগ্রহ। আগামী পূর্ণিমাতেই আকাশে দেখা পাওয়া যাবে সুপার মুনের। চলতি বছরে সবথেকে উজ্জ্বল ও বড় পূর্ণিমার সাক্ষী থাকবে এই চাঁদ। এপ্রিলের এই সুপারমুনের নামকরণ হয়েছে গোলাপি চাঁদ। তবে গোলাপি বলা হলেও আদৌ পিঙ্ক নয় এই চাঁদের রঙ। গবেষকরা বলছেন,চাঁদ যখন অনেক বড় ও উজ্জ্বল হয় তখন পৃথিবীর কক্ষপথের সব থেকে কাছে চলে আসে। তখন তাকে সুপারমুন বলা হয়। 

মাস্কের নামে জাঙিয়া, পাকিস্তানকে 'চুনা লাগাল' চিন..

তবে পূর্ণিমা হলেই যে সুপারমুন হবে, তা কিন্তু নয়। মূলত উত্তর আমেরিকার বসন্তকালের একটি গোলাপি ফুলের নামে এই চাঁদের নামকরণ হয়ে থাকে। তাই ওই ফুলের নামেই একে পিঙ্ক মুন বলা হচ্ছে। আসলে ওই ফুলটির নাম ফোলক্স । তবে পিঙ্ক মুন বাদেও স্প্রাউটিং গ্রাস মুন, এগ মুন এবং ফিশ মুন নামেও ডাকা হয় ওই চাঁদকে। 

করোনা আতঙ্কের জের এবার ছাগলদের উপরে, মুহূর্তে ভিডিও ভাইরাল হল নেট দুনিয়ায়.

তবে কলকাতা বা ভারতের বুকে দেখা যাবে না এই গোলাপি চাঁদের। ভারতীয় সময় সকাল ৮টা ৫০ মিনিটে দেখা মিলবে এই চাঁদের। অতীতে সুপারমুন দেখা গিয়েছিল ৯ মার্চ থেকে ১১ মার্চের মধ্যে। তবে অনলাইনে সুপার মুন দেখতে পাওয়া যাবে। আপাতত চাঁদের গোলাপিকরণ দেখা হচ্ছে না মহানগরবাসীর। এরজন্য অপেক্ষা করে থাকতে হবে আরও অনেক সময়।