চুলের স্টাইলই বদলে দিতে পারে আপনার সৌন্দর্য। এই কথাটা  কিন্তু খাটি সত্য। কোথায় বেরানোর সময় যেমন পোশাক নিয়ে সমস্যায় পড়ি আমরা ঠিক তেমনই কোন পোশাকের সঙ্গে কী চুল বাধব এই নিয়েও হাজারো সমস্যার সৃষ্টি হয়। ড্রেসের সঙ্গে চুলের স্টাইল সবসময়েই যেন মানানসই থাকে তাহলেই তা দেখতে সুন্দর লাগে।  কোন জায়গায় কী চুল বাধলে ভাল লাগবে , এবং তাতেই ফুটে ওঠে আপনার ব্যক্তিত্ব। কিন্তু কোন পোশাকের সঙ্গে কী চুল বাধবেন সেটা সবার আগে জানা দরকার। যেমন অফিস হল একটি কাজের জায়গা যেখানে পার্টি  লুকসে কখনওই যাওয়া উচিত নয়।  এলোমেলা করে চুলে খুলে না রেখে বরং তার চেয়ে পরিপাটি করে বেধে নেওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ।

আরও পড়ুন-ফের পকেটে কোপ, মূল্যবৃদ্ধির জেরে মোবাইল প্ল্যানের দাম বাড়াল জিও...

নিজের মুখের আদল অনুযায়ী হেয়ার কাট করাটা সবথেকে বুদ্ধিমানের কাজ। কারণ মুখের সঙ্গে মানানসই না হলে পুরো সাজটাই বৃথা। যার মুখের শেপ যেমন তারা সেই অনুযায়ী চুল কাটবেন। দেখবেন লুকটাই যেন চেঞ্জ হয়ে যাবে মুহূর্তের মধ্যে। যারা  শর্ট হেয়ারস্টাইল পছন্দ করেন  তারা অনায়াসেই করতে পারেন। যাতে লেয়ার্স থাকতেও পারে আবার না-ও থাকতে পারে। সামনের দিকটা ফ্লিকস করে কেটে নিতে পারেন। এতে আলাদা একটা স্টাইল ক্যারি করবে। সব ধরনের পোশাকের সঙ্গেও মানানসই এই হেয়ারস্টাইল।

আরও পড়ুন-চুলের উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে ব্যবহার করুন অলিভ অয়েল, জানুন কীভাবে...

 

আরও পড়ুন-শরীর দুর্বল, একটি মাত্র শাকেই হবে সমস্যার সমাধান...

পনি টেল বাধতে যারা পছন্দ করেন তারা  বিভিন্ন ভাবে বেধে নিতে পারেন। নিজের মুখের শেপ অনুযায়ী উচু-নিচু করে বেধে নিন। দেখতেই সুন্দর লাগবে আবার অন্য একটা স্টাইলও ক্যারি করবে। জিন্স, কুর্তির সঙ্গে দারুণ মানানসই এই হেয়ারস্টাইল। যারা খোপা বাধতে পছন্দ করেন তারা অনায়াসেই এটা ট্রাই করতে পারেন। মুখের সামনের  থেকে পুরো চুল সরিয়ে, পিছন দিকে অবধি  নিয়ে যান। তারপর ‘ববি পিন’-এর সাহায্যে সেটা উপরের দিকে তুলে, মাথার ভিতরের দিকে আটকে দিন। টান-টান যেন থাকে সেদিকে খেয়াল রাখবেন। ব্যস্ত কর্মজীবনের জন্য চুল ছোট করে কেটে রাখতে অনেকেই পছন্দ করেন।আর  সেই চুলটাকেই ভালো করে মেনটেন করেন। তাই ছোট চুলও নিজের  খুশিমতো স্টাইলে রাখুন।