১ এপ্রিল সারা বিশ্ব জুড়ে এই দিন 'ফুল ডে' বা বোকা বানানোর দিন হিসেবে পরিচিত। অনেকে আবার এই দিনটিকে 'প্রাঙ্ক ডে' ও বলে থাকেন। তবে নাম আর যাই হোক না কেন, আসল উদ্দেশ্য হল অন্যকে বোকা বানানো। ইরানে পার্সি ক্যালেন্ডার অনুসারে নববর্ষের ১৩তম দিনে আনন্দ উৎসব পালন করা হয়। এই দিন গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডারে হিসেব অনুযায়ী তা ১ এপ্রিল ও ২ এপ্রিল। ঐতিহাসিকদের মতে, ১৫৬৪ সালে ফ্রান্সে নতুন ক্যালেন্ডার চালু করাকে কেন্দ্র করে এপ্রিল ফুল ডে'র সূচনা হয়। 

আরও পড়ুন- বোকা বানানোর সহজ উপায়, এপ্রিল ফুল-এ রইল সেরা ১০ মজার টিপস

গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডারে ১ এপ্রিলের পরিবর্তে ১ জানুয়ারীকে নতুন বছরের প্রথম দিন হিসেবে গণনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। এর ফলে কিছু লোক তার বিরোধিতা করেন। যারা পুরনো ক্যালেণ্ডার অনুযায়ী ১ এপ্রিলকেই নববর্ষের প্রথম দিন ধরে দিন গণনা করে আসছিলেন, তাদেরকে প্রতি বছর ১ এপ্রিলে বোকা উপাধি দেয়া হতো। ফ্রান্সে 'পয়সন দ্য আভ্রিল' পালিত হয় এবং এর সঙ্গে এর সম্পর্ক রয়েছে। 

আরও পড়ুন- হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করে ভুলেও রান্নাঘরে নয়, ঘটতে পারে মারাত্মক বিপদ

আসলে এপ্রিলের শুরুর দিকে ডিম ফুটে মাছের বাচ্চা বের হয়। আর এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ছোটদের সহজেই বোকা বানানো যায়। পয়সন দ্য এভ্রিল কথার অর্থ হল এপ্রিলের মাছ। এই দিনে ছোটরা অন্য বাচ্চাদের পিঠে কাগজের মাছ ঝুলিয়ে দেয় তাদের অজান্তেই। আর অন্যরা দেখে তখন বলে ওঠে পয়সন দ্য আভ্রিল বলে চিৎকার করে। কবি চসারের ক্যান্টারবারি টেইলস(১৩৯২) বইয়ের নানস প্রিস্টস টেইল এ এই দিনের উল্লেখ রয়েছে। তবে এই লেখা কোনও ভাবেই অন্যকে বোকা বানানোর জন্য লেখা হয়নি। হতেই পারে যে সকলকে বোকা বানানোর জন্যই এমন একটি বিষয় তুলে ধরা হয়েছে। যা আমরা অজান্তেই পড়ে বোকা হচ্ছি।