দীর্ঘ কয়েক দশক ধরে মেদিনীপুর শহরকে সেভাবে সংস্কার করা সম্ভব হয়নি। কংক্রিটের নিত্য নতুন বাড়ির ঠাসাঠাসি অবস্থান রাস্তাঘাট গুলিকে একেবারে সংকীর্ণ করে তুলেছে। বিভিন্ন জটিলতার কারণে সেই সংকীর্ণতাকে কাটিয়ে রাস্তার সম্প্রসারণ সম্ভব হয়নি। এবার সেই উদ্যোগ পুনরায়। জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে প্রস্তাব পাঠানো হলো মেদনীপুর শহরে এক্সপ্রেসওয়ে তৈরির জন্য। নকশাতে থাকছে আরও বেশ কিছু মার্কেট কমপ্লেক্স অডিটোরিয়াম।

মে মাসেই চালু হতে চলেছে ফুলবাগানে মেট্রো, আনন্দে মেতে উঠেছে কলকাতাবাসী

ইতিমধ্যেই পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে একটি রূপরেখা তৈরি করে নবান্নতে পাঠানো হয়েছে। এ প্রসঙ্গে জেলা পরিষদের সহ-সভাধিপতি অজিত মাইতি বলেন, " মেদিনীপুর শহরের বুকে এক্সপ্রেসওয়ে তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যা কেরানিচটি থেকে সিপাই বাজার হয়ে জজকোর্ট এলাকা ঘুরে জগন্নাথ মন্দির সংলগ্ন ‌এলাকা ঘুরে জাতীয় সড়কে গিয়ে মিশবে। প্রাচীন মেদিনীপুর শহরের মর্যাদাকে ধরে রাখতে এই উদ্যোগ।এর জন্য ফ্লাই ওভার করার দরকার হলে হবে। শহরের তিনটি স্থানে তিনটি বড় অডিটোরিয়াম হল বানানো হবে। পঞ্চুচক থেকে বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত কয়েকটা তিনতলা সুপার মার্কেট করা হবে। যেখানে বেকারদের কর্মসস্থান হবে।"

এই পৌরসভায় গতবার খাতা খুলতে পারেনি তৃণমূল, কী হবে এবারের ফলাফল

এই প্রস্তাব ইতিমধ্যেই নবান্নে পাঠানো হয়ে গিয়েছে। সেগুলি মঞ্জুর হবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন জেলা পরিষদের আধিকারিকরা। পুরোনো মেদিনীপুর শহরের ভেতরে থাকা রাস্তাগুলি প্রশস্তকরণের উদ্যোগ আগেও নিয়েছিল পুরবোর্ড ৷ কিন্তু বিভিন্ন আইনি জটিলতা ও রাজনৈতিক চাপে তা বন্ধ রাখতে বাধ্য হয়েছিল চালুর পরেই ৷ এবার প্রায় এক দশক পরে সেই উদ্যোগে নেওয়া হয়েছে ৷ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে ৷  তবে এবার চাপে প্রশস্তকরণ না করা গেলেও থামবে না প্রকল্প ৷ জেলা সহ সভাধিপতি অজিত মাইতি জানিয়েছেন, রাস্তায় আটকে গেলেও দরকার হলে ওভারব্রিজ করেও রাস্তা সমস্যার সমাধান করা হবে ৷

ভূবনেশ্বর যাত্রায় জল্পনা, অমিত শাহের সঙ্গে কি আলাদা বৈঠক মমতার