Asianet News BanglaAsianet News Bangla

Tokyo Olympics 2020, ৭টি সেলাই নিয়ে দুর্দান্ত লড়াই, তাও ছিটকে গেলেন বক্সার সতীশ কুমার

৭টি ,সেলাই নিয়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের বিরুদ্ধে দুর্দান্ত লড়লেন বক্সার সতীশ কুমার। কিন্তু, বিশ্বচ্যাম্পিয়ন উজবেক বক্সারকে  হারাতে পারলেন না তিনি। 

Tokyo Olympics 2020, boxer Satish Kumar's run ends at quarterfinal ALB
Author
Kolkata, First Published Aug 1, 2021, 10:04 AM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

টোকিও অলিম্পিক ২০২০-র দশম দিনের শুরুতেই ভারতের জন্য সুখবর আসতে পারত বক্সিং রিং থেকে। এদিন পুরুষদের হেভিওয়েট (৯১ কেজি) বক্সিং-এর কোয়ার্টারফাইনালে জিতলেই ভারতের জন্য রদক নিশ্চিত করতে পারতেন বকসার সতীশ কুমার। কিন্তু দুর্দান্ত লড়াই করেও এই উজবেকিস্তানের বক্সার বাখোদির জোলোলোভ-এর বিরুদ্ধে ৫-০ পয়েন্টে পরাজিত হলেন সতীশ কুমার। কাজেই এইবারের মতো তাঁর অলিম্পিক দৌড় শেষ হয়ে গেল। 

েদিন অবশ্য তার কোয়ার্টারফাইনালে নামাটাই অনিশ্চিত ছিল। আগের রাউন্ডের লড়াইয়ে জামাইকার রিকার্ডো ব্রাউনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বড় রকমের চোট পেয়েছিলেন তিনি। মুখে ৭টি সেলাই পড়েছিল। চিকিৎসকরা পরীক্ষা করে তাকে লড়াইয়ের অনুমতি দেন। কিন্তু সেমিতে ওঠার লড়াইটা ছিল দারুণ কঠিন। কারণ সামনে ছিলেন উদবেক বক্সার বাখোদির জোলোলোভ। ই মহূর্তে অপেশাদার হেভিওয়েট বক্সিং-ে তিনিই বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন। তবু, মনে রাখার মতো লডা়ই উপহার দিলেন ২৯ বছরের ভারতীয় বক্সার। 

প্রথম দুই রাউন্ডের লড়াইয়েই পিছিয়ে পড়েছিলেন সতীশ। শেষ রাউন্ডে জিততে গেলে উজবেক বক্সারকে নকআউট করতে হতো। তা করতে পারেননি সতীশ। তবে েদিন হেরে গেলেও সতীশ কিন্তু অলিম্পিকে ইতিহাস রচনা করে গেলেন। অলিম্পিকে হেভিওয়েট বক্সিং-ে তিনিই প্রথম ভারতীয় হিসাবে লড়াই করার যোগ্তিযতা অর্জন করেছিলেন। ২০১৯ সালের েপ্রিলে েশিয়া-ওশেনিয়া কোয়ালিফারার্সের সেমিফাইনালে উঠেছিলেন তিনি। 

উত্তরপ্রদেশের বুলন্দশহরের  েক কৃষক পরিবারে সন্তান সতীশ। বড় দাদার মতো তিনিও ভারতীয় সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে চেয়েছিলেন। ২০০৮ সালে সেপাই হিসাবে যোদ দেন বাহিনীতে। আর ই সময় থেকেই ৬ ফুট ২ ইঞ্চি দীর্ঘ সতীশের বক্সিং-ের শুরু। ২০১৪ েশিয়ান গেমস  েবং ২০১৫ সালের শিয়ান বক্সিং চ্যাম্পিয়নশিপে ব্রোঞ্জ জিতেছিলেন তিনি। গোল্ড কোস্ট কমনওয়েল্থ গেমসে জিতেছিলেন রুপো।  

 

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios