বাতিল করা হতে পারে  টোকিও অলিম্পিক। করোনাভাইরাস আতঙ্কে এখন এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এই মুহূর্তে টোকিও-তে পুরোদমে চলছে অলিম্পিকের শেষমুহূর্তের প্রস্তুতি। কিন্তু, করোনাভাইরাসের গ্রাস যেভাবে প্রতিনিয়ত বিশ্বজুড়ে তার থাবা-কে বৃদ্ধি করে চলেছে তাতে অলিম্পিকও বাতিল হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির সিনিয়র সদস্য ডিক পাউন্ড জানিয়েছেন, করোনাভাইরাসের জন্য টোকিও অলিম্পিক-কে পিছিয়ে দেওয়া বা স্থগিত রাখার থেকেও আয়োজকরা তা বাতিল করে দেওয়ার পথেই হাঁটতে পারেন। কারণ, করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে সঙ্ঘবদ্ধভাবে লড়াইটা এখন জরুরি হয়ে উঠেছে। 

আরও পড়ুন- ইনজুরি থেকে ফিরেই বাজিমাত নিরজের, পেয়ে গেলেন টোকিও অলিম্পিকের টিকিট

একটা সময় কানাডার জাতীয় চ্যাম্পিয়ন সাতারু ছিলেন ডিক পাউন্ড। ১৯৭৮ সাল থেকে তিনি আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির সঙ্গে রয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে টোকিও অলিম্পিকের আয়োজন পুরোপুরি শেষ। এখন চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। আর কিছুদিনের মধ্যেই অলিম্পিক স্টেডিয়াম থেকে শুরু করে গেমস ভিলেজ, হোটেল এবং আয়োজনের সঙ্গে জড়িত নানা বিষয়ের উদ্বোধন এবং প্রকাশ রয়ছে। আন্তর্জাতিক মিডিয়ার সামনে টোকিও অলিম্পিকের আয়োজনকে বলতে গেলে উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে। সে দিক দিয়ে দেখতে গেলে টোকিও অলিম্পিকের আয়োজন এই মুহূর্তে স্বাভাবিক পর্যায়েই রয়েছে। তবে, এতে সাংঘাতিকভাবে প্রভাব ফেলেছে করোনাভাইরাস। চিনের সঙ্গে সঙ্গে বিশ্বের একাধিক দেশ এই ভাইরাস সংক্রমণে আক্রান্ত। জাপানেও এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব হয়েছে। অলিম্পিক হল বিশ্ব মিলনের মঞ্চ। সুতরাং সেখানে করোনাভাইরাসের সংক্রমণকে মোকাবিলা করাটা বিশাল চ্যালেঞ্জ। কিন্তু এই চ্যালেঞ্জ নেওয়াটা বিশ্বযুদ্ধের থেকেও বড় ব্যাপার বলে মনে করা হচ্ছে। তাই করোনাভাইরাস নিয়ে অলিম্পিক আয়োজনে কালো মেঘের আনাগোনা শুরু হয়েছে বলেই জানিয়েছেন ডিক পাউন্ড। 

আরও পড়ুন- নিশানায় এখন অলিম্পিক, এশিয়ান চ্য়াম্পিয়নশিপে রুপো সৌরভ চৌধুরির

অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস-কে দেওয়া একটি একান্ত এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারে ডিক পাউন্ড জানিয়েছেন, 'এই সময়ে দাঁড়িয়ে আমাদের ভাবতে হবে, আদৌ আমরা এটাকে নিয়ন্ত্রণ করার মতো সমর্থ কি না এবং টোকিও নিয়ে আমরা এগোব, না এগোব না।' এই প্রসঙ্গে তিনি আরও জানিয়েছেন, 'খুব শিগরি অলিম্পিকের ড্র অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়াও আরও অনেককিছু-র উদ্বোধন হবে। নিরাপত্তা থেকে শুরু করে গেমস ভিলেজের প্রতিটি পরিষেবা, খাবার-এর ব্যবস্থা, গেমস ভিলেজ থেকে হোটেল-সমস্ত ব্যবস্থা সেরে ফেলতে হবে। মিডিয়ায় কর্মীরা তাদের স্টুডিও বানাতে শুরু করবেন।' তিনি অত্যন্ত দৃঢ়তার সঙ্গে জানিয়েছেন, যদি আইওসি সিদ্ধান্ত নেয় যে টোকিও অলিম্পিক নিয়ে আর এগোনো হবে না, তাহলে তা বাতিল করা ছাড়া অন্য কোনও রাস্তা থাকবে না। তাঁর মতে, এই নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হতে পারে মে মাসের শেষ সপ্তাহে। কারণ, অলিম্পিকের আগে হাতে এখন তিন মাস সময় রয়েছে। এই তিন মাস-এ করোনাভাইরাস-এর প্রভাব আরও খানিকটা হলে স্পষ্ট হবে বলেই মনে করছেন ডিক পাউন্ড। 

এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে চিনে কয়েক লক্ষ মানুষ সংক্রমিত হয়েছেন। চিনেই মৃত্যু হয়েছে কয়েক হাজার মানুষের। বিশ্বজুড়েও করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ক্রমশই বেড়ে চলেছে। এই ভাইরাস সংক্রমণে নতুন করে আতঙ্ক ছড়িয়েছে ইরান। সেখানে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা।