সোমবার ক্রীড়া বিশ্বের কাছে একটা বড় খবর এসে পোঁছাল। ডোপিং কাণ্ডে রাশিয়াকে চার বছরের জন্য নির্বাসিত করল ওয়াল্ড অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সি। সোমবার বৈঠকে বসেছিল ওয়াডার এক্সিকিউটিভ কমিটি। সেখানে সব দিক বিচার করে সর্বসম্মত ভাবে সিদ্ধান্ত হয়েছে রাশিয়াকে চার বছরের জন্য নির্বাসনে পাঠানোর। রাশিয়ার বিরুদ্ধে ডোপিংয়ের পাশাপাশি, ডোপিং সংক্রান্ত বিভিন্ন রিপোর্ট বদলে দেওয়া, ফাইল ডিলিট করে দেওয়ার মত অভিযোগ উঠেছে। ওয়াডার তদন্তে সেটা প্রমাণিত। তাই আগামী চার বছর ক্রীড়া মহল থেকে নির্বাসিত রাশিয়া। অলিম্পিক সহ কোনও ধরনের প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবেন না রাশিয়ার অ্যাথলিটরা। 

 

 

আরও পড়ুন - আইসিসি’র বিরুদ্ধে লড়াই, ইংল্যান্ড বোর্ডের কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন সৌরভরা

ওয়ডার এক্সিকিউটিভ কমিটির বৈঠকে যে রিপোর্ট উঠে এসেছে, তাতে প্রমাণিত যে রাশিয়া তাদের অ্যাথলিটদের ডোপিং সংক্রান্ত একাধিক নথিতে জালিয়াতি করেছে। বদলে দেওয়া হয়েছে একাধিক রিপোর্ট, এমনকি প্রচুর গুরুত্বপূর্ণ ফাইলও ডিলিট করে দেওয়া হয়েছে রেকর্ড থেকে, যাতে ক্রীড়াবিদদের ডোপিং ধরা না পরে। ২০১৫ সাল থেকে রাশিয়ার অকাধিক অ্যাথলিট একাধিক ইভেন্টে ডোপিংয়ের দায়ে ধরা পরেছেন। তারপর প্রশ্ন উঠেছিল রাশিয়ার অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সির ভূমিকা নিয়ে। সেই তদন্তে নেমে ম্যানুপুলেশনের তথ্য উঠে আসে ওয়াডার সামনে। রাশিয়া গোটা ঘটনাকে টেকনিক্যাল ইস্যু বলে বাঁচার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু সেই কথা ধোপে টেকেনি। তাই ক্রীড়া বিশ্বে চরম লজ্জার মুখে পরতে হল নাদিয়ার দেশকে। 

আরও পড়ুন - শ্রীলঙ্কার হাত ধরে দশ বছর পর টেস্ট ক্রিকেট ফিরছে পাকিস্তানে

রাশিয়া চার বছরের জন্য নির্বাসিত হলেও তাদের অ্যাথলিটদের কাছে সুযোগ আছে অলিম্পিক সহ অন্য প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার। অলিম্পিক ফ্ল্যাগের অধীনে অংশ নিতে পারবেন ত্রীড়াবিদরা। তবে তাঁরা পদক জিতলে কোনও জাতীয় সংগীত বাজবে না। রাশিয়ার একটা অংশের মানুষ মনে করছেন এই শাস্তি যুক্তিযত নয়। আবার একটা অংশ এই শাস্তি মাথা পেতেই নিচ্ছে। এখন প্রশ্ন এরপর কী আবেদন করার সুযোগ থাকছে রাশিয়ার সামনে। হ্যাঁ, রাশিয়া আবেদন করতে পারে। এবার সেই আবেদনের শুনানি হবে কোর্ট অব আর্বিট্রেশন ফর স্পোর্টসে। এমনটাই জানিয়েছে ওয়াল্ড অ্যান্টি ডোপিং এজেন্সি। 

আরও পড়ুন - রঞ্জি ট্রফির প্রথম দিনই বিপত্তি, মাঠে সাপ ঢুকে পড়ায় খেলা শুরু হতে দেরি