নতুন কোনও চমক নেই ডোমজুড়ের প্রার্থী হচ্ছেন তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। আর সিঙ্গুরের মাস্টারমশাই রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যও তাঁর নিজের নির্বাচনী কেন্দ্রে বিজেপির টিকিটে ভোট যুদ্ধে সামিল হচ্ছেন। তৃতীয় দফায় ২৭টি ও চতুর্থ দফায় ৩৮টি আসনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করল বিজেপি। রবিবার দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে বিজেপির জাতীয় সম্পাদক অর্জুন সিং প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেন। তিনি জানিয়েছেন আলিপুরদুয়ার থেকে লড়াই করেন অর্থনীতিবিদ অশোক লাহিড়ী। টালিগঞ্জের প্রার্থী হচ্ছেন বাবুল সুপ্রিয়। 

'আমাদের পরিবার নেই তাই আমরা দুর্নীতিগ্রস্ত নই', কেন এই কথা বললেন এক ভোট প্রার্থী ..

করোনা-টিকায় বড় পরিবর্তন আনল কেন্দ্রে, কোভিশিল্ডের দুটি ডোজের ব্যবধান বাড়াতে নির্দেশ ..
দ্বিতীয় ও তৃতীয় দফায় বেশ কয়েক জন অভিনেতা অভিনেত্রী টিকিট পেয়েছেন। চণ্ডীতলার প্রার্থী হয়েছেন যশ দাশগুপ্ত।  শ্যামপুরের প্রার্থী হচ্ছেন অভিনেত্রী তনুশ্রী চক্রবর্তী। সোনারপুর দক্ষিণের প্রার্থী হচ্ছেন অঞ্জনা বসু। বিধায়ক হওয়ার ইচ্ছে নিয়েই পদ্ম শিবিরে যোগ দিয়েছিলেন অভিনেত্রী পায়েল সরকার। তিনি বেহালা পূর্বের প্রার্থী হচ্ছেন। তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী হবেন শোভন চট্টোপাধ্যায়ের স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়।  চুঁচুড়া বিধানসভা কেন্দ্র থেকে লড়াই করবেন সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। 


যাদবপুর কেন্দ্র থেকে বিজেপির টিকিটে লড়াই করবেন দীর্ঘ দিনের বাম কর্মী রিঙ্কু নস্কর। মাস খানেক আগেই সিপিএম  ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। দিলীপ ঘোষের পাশে দাঁড়িয়েই বাম কংগ্রেসের জোট নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। তিনি কলকাতা পুরসভার বিদায়ী কাউন্সিলরও। তুফানগঞ্জ থেকে লড়াই করছেন মালতি রাভা রায়। ভাঙড়ের প্রার্থী সৌমি হাতি। টিকিট না পেয়ে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন একটা সময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডানহাত সোনালি গুহ। কিন্তু সেখানে গিয়েও সাতগাছিয়া থেকে লড়তে পারছেন না তিনি। সাংসদ তথা সাংবাদিক  স্বপন দাশগুপ্তকেও লড়াই করতে হচ্ছে বিধানসভা ভোটে। 


বিজেপির প্রকাশিত তালিকা অনুযায়ী প্রার্থীরা হলেন