সোমবার বাঘমুন্ডি বিধানসভার হয়ে ঝালদা হাইস্কুল ময়দানে এসে হুইলচেয়ারে বসেই মোদী সরকারকেই তোপ দাগেন মমতা। অপরদিকে ঝালদায় সভা সেরে স্বল্প সময়ের মধ্য়ে পৌছন বলরামপুরে। ভোটের আগে এদিনের জোড়া সভায় বাজিমাত তৃণমূল সুপ্রিমোর।

আরও পড়ুন, 'দিদির আমলে মোদীর প্রকল্প পায়নি বাংলার মানুষ', ঝাড়গ্রামের সভায় মমতাকে নিশানা শাহ-র  

 তৃণমূল সুপ্রিমো এদিন বলেছেন, 'এক সময়ে অযোধ্যা পাহাড়ে অনেক সন্ত্রাস ছিল-গত কয়েক বছরে অনেক উন্নয়ন হয়েছে। আদিবাসীরা শিক্ষাশ্রী প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। লক্ষ লক্ষ শংসাপত্র দেওয়া হয়েছে। আমরা আদিবাসীদের জমির অধিকার কেড়ে নিই না। কৃষকদের বছরে ৬০০০ টাকা করে দেওয়া হয়। লোকসভা ভোটে মিথ্য়ে কথা বলে জিতেছিল বিজেপি, ভোটের পর আর কোনও উন্নয়ন করেছে কেন্দ্র', এদিন প্রশ্ন তোলেন মমতা।  এর পাশপাশি  ' এখনও সীমান্তগুলি সিল করা হয়নি, ভোটের আগেই দেখবেন বহিরাগতরা ঢুকছে' বলে অভিযোগ তুললেন এদিন মমতা।

আরও পড়ুন, এখনও রয়েছে অনেক দুর্বলতা - তবু ঠিক কী কী কারণে বাংলায় ২০০ আসনে জয়ের স্বপ্ন দেখছে বিজেপি 

অপরদিকে ঝালদায় সভা সেরে বলরামপুরের সভা উদ্দেশ্য়ে রওনা দিলেন মমতা। মুহূর্তে সেখানে পৌছে গিয়ে বক্তব্য রাখলেন। মমতা এদিন বললেন,'  পুরুলিয়া আজ পর্যটকদের প্রিয় জায়গা।  পুরুলিয়ার রাস্তাঘাট আজ অনেক উন্নত। আপনারা কিন্তু তৃণমূলকে ভূল বুঝবেন না। কারও কারও কাজে আপনারা আঘাত পেতে পারেন, আমি তাঁদের হয়ে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। অনেকেই ভেবেছিলেন আমি বেরোতে বোধয় পারব না, আমি না বেরোলে পুরুলিয়া দখল হয়ে যাবে, আমি পুরুলিয়াকে দখল হতে দেব না।আমার থেকে মানুষের যন্ত্রনা অনেক বেশি, তাই মানুষের কাছে আসতে হবে। হুইলচেয়ারে বসে  বলরামপুরের সভা মঞ্চ থেকে বললেন মমতা।