গোঘাটে জনসভা থেকে বিজেপিকে ফের নিশানা করলেন মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায়। তবে এদিন নন্দীগ্রামের ভোটের ঠিক আগের দিন তাঁর নিশানায় মূলত ছিল নাম না করেই কাঁথির অধিকারী পরিবার। আগের দিন মুকুলের প্রশংসা করে ফের শুভেন্দুর নিন্দায় ব্রত হলেন মমতা। এদিন ফের নন্দীগ্রামে পায়ে আঘাত পাওয়ার ঘটনাকে হামলা হিসেবে তকমা দিয়ে শিশির পুত্রকে নিশানা করেন। এমন কি নাম না করে হুশিয়ারিও দিলেন তিনি, ইলেকশনটা হয়ে যাক-তারপর দেখি কে তোমাকে আশ্রয় দেয়। অপরদিকে প্রতিশ্রুতি প্লাবন এনে দিয়েছেন এদিন গোঘাটে এসে মমতা। 

আরও পড়ুন, Election Live Update- দ্বিতীয় দফার ভোটে মুখোমুখি হচ্ছে বাংলা, ৪ জেলার ৩০ আসনে কড়া নিরাপত্তায় ভোট 


এদিন তিনি মূল্য ফেলে আসা সভায় মোদী-শাহ-র প্রতিশ্রুতির পাল্টা পানীয় জল প্রকল্পে আস্থা ফিরিয়ে ভোটে জিততে মরিয়া তৃণমূল সুপ্রিমো। তিনি এদিন মোদীর সুরেই বলেছেন, ঘরে ঘরে পানীয় জল পৌছে দেওয়া হবে। গোঘাটে বন্যা রুখতে মাস্টার প্ল্য়ান করা হবে। দুবছর সময় লাগবে প্রকল্পটি সম্পূর্ণ হতে। এর জন্য বিপুল পরিমাণ অর্থ তিনি বরাদ্দ করেচেন বলে জানিয়েছেন। তবুও নন্দীগ্রামের ভোটের ঠিক আগের দিন বারবার উঠে আসছে সেই প্রশ্ন, যা ৩৪ বছরে হয়নি বলে অভিযোগ আনা হচ্ছে, তা কেন গত ১০ বছরে হল না, সেখানে তো বিজেপি  ক্ষমতায় আসার পরই কেবল সুযোগ পাবে কিছু করার, এমনই চাপান উতোর রাজনৈতিক মহলে।

 

আরও পড়ুন, 'মা মাটি মানুষের স্লোগান দিয়ে মায়ের কি হাল-নিমতাকাণ্ডেই স্পষ্ট', ধনেয়াখলিতে ধিক্কার নাড্ডার 


অপরদিকে, রাত পেরোলেই রাজ্যে দ্বিতীয় দফার ভোট। তারমধ্যে সবচেয়ে হেভিওয়েট কেন্দ্রই হল নন্দীগ্রাম।মূলত তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি যোগ দেওয়ার পর হেভিওয়েট নন্দীগ্রামের প্রার্থী হিসেবে এবার দাড়িয়েছেন শুভেন্দু। আর সেই নন্দীগ্রামেই প্রার্থী আবার তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। স্বাভাবিকভাবেই একুশের ভোটযুদ্ধ এবার অন্যবারের থেকে পুরোটাই আলাদা। আর ঠিক নন্দীগ্রামে ভোটে হবার আগের দিন ফের অধিকারী পরিবারকে নাম না করে নিশানা করে শেষবেলায় ভোট জয়ের চেষ্টায় মরিয়া মমতার সরকার বলে মত রাজনৈতিক মহলের।