বাংলা সফরে এসেই তৃণমূলকে তোপ দিয়ে দুপুরে নৈহাটিতে নাড্ডা। নৈহাটিতে বঙ্কিম ভবনে পৌছে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন জেপি নাড্ডা, কৈলাস বিজয়বর্গীয় সহ বিজেপির শীর্ষ নের্তৃত্ব। এরপর বেশ কিছুটা সময় সাহিত্য সম্রাটের বাসভবনে কাটিয়েছেন নাড্ডা সহ বিজেপির শীর্ষ নের্তৃত্ব। 

 

এদিন এসে মন দিয়ে ঘুরে দেখেন বন্দেমাতরমের স্রষ্ঠা বঙ্কিম চন্দ্রের বাড়ি ও সংগ্রহ শালা। ঢোকেন আতুরঘরেও বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি। শ্রদ্ধা নিবেদন করার পর বলেন,' বঙ্কিমচন্দ্র দেশের জন্য যা করেছেন তার জন্য বঙ্কিমচন্দ্রকে প্রণাম জানাই।' এদিন স্বাধীনতার শুরু এবং বন্দেমাতরমের প্রশংসায় পঞ্চমুখ নাড্ডা। বলেন, 'দেশের গর্ব বঙ্কিম চন্দ্র চট্টোপাধ্যায়।' তিনি যেখানে বসে  বন্দেমাতরম রচনা করেছেন, সেই পবিত্র স্থান দেখার সৌভাগ্য মিলেছে।' এরপরেই ফের মমতার সরকারকে তোপ দেগে বলেন,' বাংলার মনীষিদের নিয়েও রাজনীতি হচ্ছে।'

 

 

 

এদিন সকাল থেকে শুরু হয় নাড্ডার সফর।বৃহস্পতিবার নিউটাউন অভিজাত হোটেল থেকে ১০টা ১০মিনিটে বেরিয়ে হেসস্টিংসের বিজেপি কার্যালয়ে কার্য কর্তাদের বৈঠক করেন তিনি। লক্ষ্য সোনার বাংলার সূচনায় গিয়ে বাংলার স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে তুলে ধরে মমতার সরকারের বিরুদ্ধে তার পর তোপ দাগেন নাড্ডা। উল্লেখ্য, আমফান দুর্যোগের পর ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য দিল্লি থেকে আর্থিক সাহায্য পাঠানো হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী মোদী সেই টাকা পাঠায়েছিলেন। কিন্তু সেই টাকা ক্ষতিগ্রস্তদের কাছে পৌঁছায়নি বলেও অভিযোগ তোলেন  এদিন নাড্ডা। আমফান ইস্যুতে রাজ্য সরকারের কোর্টে যাওয়ার বিষয়টিকেও কটাক্ষ করেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি।