যোগী সফরের দিনেই রবিবার খানাকুলে এসে সভা করলেন মমতা। এদিকে একই দিনে খানাকুলেই  বিজেপির সভা করছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্য়নাথ। সেই যোগী সফরের দিনেই মমতা খানাকুলবাসীদেরকে প্রতিশ্রুতির বন্যা বইয়ে দেন।

আরও পড়ুন, মোদীর 'দিদি' সম্বোধনে আপত্তি TMC-র, প্রধানমন্ত্রীকে নিশানা করতে গিয়ে কিছু চাপা পড়ল কি 

 

মমতা এদিন খানাকুলে গিয়ে বলেছেন,' রাতে পাহারা দেবে মেয়েরা আমার। মহিলা বাহিনীর পিছনে থাকবে ছেলেরা। বঙ্গ জননীদের এজেন্ট করা হোক। ভয় পাওয়ার কোনও কারণ নেই। কন্যাশ্রী-রুপোশ্রী, খাদ্য সাথী-স্বাস্থ্য সাথী পেয়েছেন। এবার আমাদের সরকার আসলে বিনা পয়সা রেশন পাওয়া যাবে।  দুয়ারে দুয়ারে রেশন পৌছে দেওয়া হবে। মহিলাদের বুক ফাঁটে তো মুখ ফাঁটে না। যেখানেই কাজ করুক তাঁদের সব উপার্জন সব সংসারের জন্য চলে যায়। মেয়েদের জন্য কিছু থাকে না। আমি মেয়েদের জন্য আমাদের সরকার থেকে একটা করে লক্ষী ভান্ডার করে দেব। প্রতি মাসে সেখানে ৫০০ থেকে ১০০০ টাকা বাড়ির মহিলা অভিভাবককে দেওয়া হবে। এতে সামাজিক সুরক্ষা থাকবে।' এদিন কৃষি ইস্যু নিয়ে কথা বলেন তৃণমূল সুপ্রিমো।

আরও পড়ুন, 'কয়লাকাণ্ডে সরাসরি জড়িত পিসি-ভাইপো', ৯০০ কোটি লুটের অভিযোগ শুভেন্দুর 

 

অপরদিকে, তৃণমূল সুপ্রিমো ভোটের মাঝে পুলিশ কর্তাদের বদলি করে দেওয়া নিয়ে ফের কমিশনকে নিশানা করেছেন। তবে এদিন খানাকুলের বাসিন্দাদের বারবার বলে মনে করিয়ে দেন, তাকে ভোট দিলেই কেবল বাংলায় শান্তিপূর্ণভাবে খেয়ে পড়ে বেঁচে থাকা যাবে। যদিও কন্যাশ্রী-রুপোশ্রী, খাদ্য সাথী-স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্প নিয়ে বললেও বাংলার কর্ম সংস্থান নিয়ে এদিনও বরাবরের মতোই ব্রাত ছিল।