বুধবার হলদিয়ায় মনোনয়ন পেশ করলেন মমতা। ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনের জন্য নন্দীগ্রামের প্রার্থী হয়ে করলেন একের পর এক পাতায় সই। সুব্রত বক্সিকে সঙ্গে নিয়ে মনোনয়ন পত্র জমা মমতার। মনোনয়ন জমা দেওয়ার আগে রেয়া পাড়া শিব মন্দিরে পুজোও দেন মমতা। করেন রোড শো। সূত্রের খবর, বুধবার আর কলকাতায় ফিরবেন না তৃণমূল সুপ্রিমো। নন্দীগ্রামেই আবার ফিরে যাবেন।

 

আরও পড়ুন, নন্দীগ্রামে দাঁড়ানোর কারণ কী, আজ সব খোঁচার উত্তর দিলেন মমতা 


এদিন শুভক্ষণ জানিয়ে মমতাকে নির্বাচনে মনোনয়ন পত্র দাখিল করার পরমার্শ এসেছে পুরীর জগন্নাথ দেবের মন্দির থেকে। মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়ের মনোনয়ন পর্ব শুভ করতে পুজো দেওয়া হচ্ছে পুরীর জগন্নাথ মন্দিরে। বুধবার দুপুর তিনটে পর্যন্ত পুরীর জগন্নাথ দেবের মন্দিরে অখন্ডদ্বীপ পুজো চলবে।  পুরীর জগন্নাথ দেবের মন্দিরের মুখ্য দৈতাপতি রাজেশ দৈতাপতি জানিয়েছেন, স্থানীয়ভাবে বিশ্বাস করা হয়, মহাপ্রভু জগন্নাথ দেবের সামনে অখন্ডদ্বীপ পুজো করলে সব গ্রহ খন্ডন হয়। সবার শেষে জয় হয়। পুরীর জগন্নাথ দেবের পাশপাশি মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়ের কালীঘাটের বাড়িতেও অধিষ্ঠিত জগন্নাথ দেবের ব্রিগহের সামনেও বুধবার দুপুর দুটো থেকে মহাদ্বীপ জ্বালানো থাকবে। 
 

আরও পড়ুন, ISF নয়, নন্দীগ্রামে মমতার বিরুদ্ধে প্রার্থী দিতে চলেছে সিপিএম 

 

 উল্লেখ্য মঙ্গলবার নন্দীগ্রামে নিজের প্রার্থী হওয়ার কারণ বলতে গিয়ে মমতা বলেন, গ্রামের দিকে আমার সবসময় টান ছিল। আমার এবার মাথায় ছিল, আমি হয় সিঙ্গুর নয় নন্দীগ্রামে দাঁড়াবো। কারণ এই দুটো হল আন্দোলনের পীঠস্থান।' এরই সঙ্গে নন্দীগ্রামের মানুষের কাছে সরাসরি জিজ্ঞেস করেন, যদি আপনারা মনে করেন আমার দাঁড়ানো উচিত নয়, তাহলে কাল আমি মনোনয়ন দেব না। । যদি আপনারা মনে করেন, আমি আপনাদের ঘরের মেয়ে, তাহলেই আমি মনোনয়ন দেব। আপনারা বলুন আমি কাল মনোনয়ন দেব তো, ওপাশ থেকে হৃদয় ভরিয়ে দেওয়া হ্য়াঁ এর প্লাবনে ভেসে ওঠে নন্দীগ্রাম। এদিনও মনোনয়ন জমা দিয়ে বাইরে বেরিয়ে এসে জোড়াফুলে ভোট দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন মমতা। তাই সব দিক থেকেই বুধবার বাংলায় বিশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে সরগরম রাজ্য।