ব্রিগেড থেকে সরাসরি চড়া সুরেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে নিশান করেন কংগ্রেস নেতা অধীর চৌধুরী। এদিন তিনি বলেন কেন্দ্রের বিজেপি ও রাজ্যের তৃণমূল কংগ্রেসের মধ্য কোনও ফারাক নেই। অধীর চৌধুরীর কথায় কেন্দ্রে বিজেপি কংগ্রেস মুক্ত ভারত গঠনের ডাক দিয়েছে, আর রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেস চাইছে বিরোধীমুক্ত বাংলা গঠন করতে। কেন্দ্রের নীতির বিরোধিতা করতে দেশদ্রোহী আখ্যা দেওয়া হয়। আর রাজ্যের নীতির বিরোধিতা করলেই জেলে পুরে দেওয়া হয়। কার্যত অধীর চৌধুরী রবিবার ব্রিগেড থেকে বুঝিয়ে দিলেন আসন্ন নির্বাচনে বিজেপির পাশাপাশি তৃণমূলের সঙ্গেও লড়াই চালান হবে। 

এদিন অধীর চৌধুরী বলেন এই রাজ্যের সরকার মহামারির সময় অভিবাসী শ্রমিকদের পাশে দাঁড়ায়নি।ভিন্ন রাজ্য থেকে যখন এই রাজ্যের শ্রমিকরা আসছিল তখন তাদের ট্রেনকে করোনা এক্সপ্রেস বলে তাদের অসম্মান করা হয়েছিল। করোনার সময় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যের অভাবাসী শ্রমিকদের পাশে দাঁড়াননি বলেও অভিযোগ করেন অধীর চৌধুরী। কৃষক আন্দোলন 
 

পেট্রোল ও ডিজেলের দাম নিয়েও  অধীর চৌধুরী কেন্দ্র ও রাজ্যের বিরুদ্ধ ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি বলে কেন্দ্র ও রাজ্য চাইলেই জ্বালানি তেলের দাম কমিয়ে দিতে পারে। কিন্তু সেই পদপেক্ষ মোদী সরকার যেমন গ্রহণ করেনি, তেমনই গ্রহণ করেনি মমতা সরকার। মাত্র এক টাকা দাম কমিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু তাতে জনগণের কোনও লাভ হবে না বলেও জানিয়েছেন তিনি। রাজ্য ও কেন্দ্রের কৃষি নীতি নিয়েও তীব্র সমালোচনা করেন অধীর চৌধুরী। তিনি আরও বলেন বাংলার নির্বাচনকে যাঁরা তৃণমূল বনাম বিজেপি লড়াই বলে বোঝাতে চাইছে তাদের ভুল প্রমাণিত করবে এই ব্রিগেড। তিনি আরও বলেন আগামী দিনে বাংলায় তৃণণূল ও থাকবে না বিজেপিও থাকবেয় না।