কোকেনকাণ্ডে বড় সাফল্য গোয়েন্দাদের। পামেলা গোস্মামী এবং রাকেশ সিং ধরা পড়ার পর এবার নিউ আলিপুর মাদক মামলায় গ্রেফতার সুরজ কুমার শা। রাম চন্দ্র শায়ের ছেলে ওয়াটগঞ্জ- আদি গঙ্গা, অরফ্যানঞ্জ মার্কেট এলাকার বাসিন্দা। তদন্তকারীদের সূত্রে খবর,  সুরজ  মূলত রাকেশের নির্দেশ অনুযায়ী স্কুটি নিয়ে পোস্ট অফিসের কাছে ঘটনাস্থলে অমৃত সিংয়ের জন্য অপেক্ষা করছিল। সেও এই মাদককাণ্ডে যুক্ত। তার এই পালিয়ে যাওয়ায় হাত ছিল সুরজের। সোমবার সুরজ কুমারকে আলিপুর কোর্টে পেশ করা হবে।

 

 

এদিকে সম্প্রতি পামেলা কাণ্ডে উঠে এসেছে একাধিক চাঞ্চল্যকর তথ্য। পামেলা গ্রেফতার হওয়ার পর বারবার দাবি করেছেন যে, তাঁর গাড়িতে রাকেশ সিংয়ের লোকই ওই মাদক রেখেছে। পরে পামেলার দাবি অনুযায়ী পুলিশ ওই ব্যক্তির খোঁজ চালালেও তাকে খুজে পাওয়া যায়নি। ধরে নেওয়া হচ্ছে যে, ওই ব্যক্তি আপাতত ফেরার। এদিকে রাকেশ সিংয়ে বাড়ির সিসিটিভি ফুটেজ ঘেঁটে পুলিশ জানতে পেরেছে, ফেরার ওই ব্যাক্তিই পামেলা গ্রেফতার হওয়ার আগের দিন , ঘটনার দিন এবং পামেলা গ্রেফতারের পরে দিন রাকেশ সিংয়ের বাড়িতে গিয়েছে। 

 

 


গোয়েন্দাদের দাবি ছিল, এই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা গেলেই মাদক চক্রের মূল মাথা অবধি পৌছানো যাবে। এবং ফেরার এই ব্যাক্তির সঙ্গে রাকেশের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল ছিল বলে দাবি লালবাজারের গোয়েন্দাদের। এরইপরেই কোকেন কাণ্ডে ৩ রাজ্য়ে তল্লাশি চালাল পুলিশ। কারা বিজেপি নেতা-নেত্রীর কাছে পৌঁছে দিত সেই মাদক, এই সন্ধানে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। ইতিমধ্য়েই ১২ জনকে জেরা করেছেন গোয়েন্দারা। তাঁদের মধ্য়ে সমাজের প্রভাবশালী ব্যক্তিরাও থাকতে পারেন বলে অনুমান তদন্তকারীদের। তবে শেষ মেষ সুরজ কুমারকে গ্রেফতারের পর পামেলাকাণ্ডের অনেকটাই জট খুলবে বলে অনুমান তদন্তকারীদের।