তৃণমূলের  জেলা সভাপতির পদ থেকেও অপসারিত শিশির। এবার পূর্ব মেদিনীপুরের তৃণমূলের জেলা সভাপতির পদ থেকেও সরানো হল শিশির অধিকারীকে। জেলা সভাপতির পদ থেকে তাঁকে অপসরণ করে দায়িত্ব দেওয়া হল সৌমেন মহাপাত্রকে।

উল্লেখ্য,  কাঁথির শান্তিকুঞ্জের প্রবীণতম সদস্য কড়া বার্তা দিতে শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্য়ান পদ থেকে আগেই তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। উল্লেখ্য, শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পরপরই তার ভাই সৌমেন্দুকেও অপসরণ করা হয়েছিল। যদিও অপসরণের কারণ জানতে চেয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে ইতিমধ্যেই কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করেছেন সৌম্যেন্দু অধিকারী। তারপর দাদার হাত ধরেই বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন  সৌম্য়েন্দু। আর এবার শিশির অধিকারীর সরে যাওয়া নিয়েও তাই উঠল প্রশ্ন। এবার কি সত্যিই তাহলে বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন শুভেন্দুর বাবা শিশির অধিকারী, চাপান উতোর রাজনৈতিক মহলে। 

যদিও ঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্য়ান পদ থেকে সরানোর পর পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেছিলেন, 'অপসরণ নয়-ওনার তো বয়েস হয়েছে। এখনও বাইরে দৌড়-ঝাপ করতে পারবেন না। যেভাবে বয়েসের কারণে সরে যেতে হয়েছে অটল বিহারী বাজপেয়ীকে, বয়েসের কারণে সরে যেতে হবে হয়তো মোদীকেও, আমারও বয়েস হলে এই সিদ্ধান্ত নিতে হবে।' তবে এবার কী বলবেন ফিরহাদ, অপেক্ষায় রাজনৈতিক মহল।