তৃণমূলে যোগদান করলেন  যশবন্ত সিনহা।  প্রথম সারির বিজেপি নেতা তথা প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীকে স্বাগত জানাল ঘাসফুল শিবির। শনিবার তৃণমূল ভবনে এসে রাজ্য়ের শাসকদলের পতাকা হাতে তুলে নেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রীকে দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখার ইচ্ছেপ্রকাশ করেছেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী।

আরও পড়ুন, আজই চূড়ান্ত হবে BJP-র বাকি আসনের প্রার্থী, শনিবার দিল্লিতে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিটির বৈঠক 

 

অটল বিহারী বাজপেয়ী জমানার প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী ছিলেন যশবন্ত সিংহা। শনিবার তৃণমূল ভবনে তিনি সুদীপ বন্দ্য়োপাধ্যায়, সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের উপস্থিতিতে তৃণমূলে যোগ দিলেন এই প্রবীণ বর্ষীয়ান নেতা। কেন্দ্রীয় অর্খমন্ত্রকের পাশপাশি প্রতিরক্ষামন্ত্রকের দায়িত্বেও ছিলেন যশবন্ত সিনহা। মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায় ইতিমধ্যেই রাজ্য়ের ২৯১ আসনের জন্য প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করে ফেলেছেন। সেক্ষেত্রে যশবন্তকে প্রার্থী করার সম্ভাবনা নেই। তবে, তাঁকে সেলেব প্রচারক হিসেবে কাজে লাগাতে পারে তৃণমূল। বিশেষ করে হিন্দিভাষী এলাকাগুলিতে শাসকদলকে সাহায্য করতে পারেন  প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী।

আরও পড়ুন, রাত পেরোলেই রাজ্য়ে শাহ, রবিবার সেলেব প্রার্থী হিরণের হয়ে প্রচারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী 


 
উল্লেখ্য, ১৯৯৯ সালের ২৪ ডিসেম্বর মাসে নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডু থেকে দিল্লিগামী এয়ার ইন্ডিয়ার একটি যাত্রীবাহী বিমান অপহরণ করে জঙ্গিরা। এই প্রসঙ্গ তুলেই এদিন যশবন্ত সিনহা বলেছেন, মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায় একজন ফাইটার। কান্দাহারের বিমান অপহরণের বিষয় নিয়ে মন্ত্রিসভায় এক বৈঠক চলছিল। সেখানে মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায় পণবন্দি হতেও রাজি ছিলেন। নিজেই বলেছিলেন একথা। বাকি পণবন্দিদের বিনিময়ে তিনি জঙ্গিদের কাছে পণবন্দি হতে চেয়েছিলেন।'