লকডাউনে বাজারে আগামী ছ'মাস রেশনে বিনামূল্যে খাদ্য সামগ্রী দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু গরিব মানুষেরা সেই সুবিধা পাবেন তো? ডিলারের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে বীরভূমে। ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন বিডিও।

আরও পড়ুন: লকডাউনের মাঝে নয়া বিপত্তি, প্রাথমিক স্কুলে এবার বসল মদের আসর

বীরভূমের মল্লারপুর  ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের গোয়ালা গ্রামের রেশন ডিলার জিতেন্দ্রনাথ মণ্ডল। তিনি নিজে অবশ্য দোকান চালান না, রেশনের সামগ্রী গ্রাহকের হাতে তুলে দেন তাঁর ছেলে প্রভাত। অভিযোগ, অন্ত্যোদয় অন্নযোজনা প্রকল্পের কার্ড যাঁরা করিয়েছেন, তাঁদের অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত পরিবার ও বিশেষ পরিবারের জন্য বরাদ্দ সামগ্রী দেওয়া হয়। কখনও কখনও আবার গ্রাহকদের খাদ্য সুরক্ষা যোজনা বরাদ্দ সামগ্রী দিয়ে বাকিটা আত্মসাৎ করে নেন রেশন ডিলারই। এমনকী, তিনি নিজের নামেও নাকি অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত পরিবারের কার্ড করিয়ে রেখেছেন! গবির, লেখাপড়া না জানা আদিবাসীর অতশত বোঝেন না। তাই এভাবে দিব্যি চলছিল।

আরও পড়ুন: গাঁজা বিক্রিকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার কাণ্ড, সংঘর্ষ থামাতে লাঠিচার্জ পুলিশের

জানা গিয়েছে, বিষয়টি জানাতে পেরে আদিবাসী রেশন দোকানে সামনে জমায়েত করেন এলাকার কয়েকজন মানুষ। চাপ পড়ে গ্রাহকদের একমাসের চাল দিতে বাধ্য হন অভিযুক্ত রেশন ডিলারের ছেলে প্রভাত। শুধু তাই নয়, রেশন সামগ্রীকে কারচুপির অভিযোগও স্বীকার করেছেন তিনি। ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন বীরভূমের ময়ুরেশ্বর ১ নম্বর ব্লকের বিডিও গোরাচাঁদ বর্মন। তিনি বলেন, খাদ্য দপ্তরের আধিকারিকদের অভিযোগ খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছি। রিপোর্ট পেলেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।