মালদায় সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশ থেকে ভারতে অনুপ্রবেশ করতে গিয়ে ধৃত চিনা নাগরিকের ঘটনার তদন্তের ভার রাজ্য পুলিশের স্পেশাল টাস্ক ফোর্স বা এসটিএফ (STF)-এর হাতে দেওয়া হল। মালদা জেলা পুলিশকে, অবিলম্বে এই মামলার কেস ডায়েরি এবং অন্যান্য নথি এসটিএফ-এর হাতে তুলে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবারই কালিয়াচক পুলিশের হেফাজতে থাকা জুনয়েই নামে ধৃত ওই চিনা যুবককে এসটিএফের হাতে তুলে দেওয়া হবে। এরপর, এসটিএফ-এর মালদা ইউনিটের ডিএসপি-র তত্ত্বাবধানে চলবে তদন্ত। তদন্তকারী অফিসারও নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছে রাজ্য পুলিশের নির্দেশিকায়।

এসটিএফ-এর ডিআইজি-র পাঠানো ওই নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, এসটিএফ-এর মালদা ইউনিটের ইন্সপেক্টর মানবেন্দ্র সাহাকে এই মামলার তদন্তের ভার দেওয়া হয়েছে। আর মালদা এসটিএফ-এর ডেপুটি সুপার অভিষেক চক্রবর্তী এই মামলার কন্ট্রোলিং অফিসার হিসাবে কাজ করবেন। কালিয়াচক থানার আইসি-কে এই মামলা হস্তান্তরের বিষয়ে অবিলম্বে সবরকম ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এর আগে তদন্তের স্বার্থে ১৮ জুন পর্যন্ত ওই চিনা নাগরিককে পুলিশি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছিল আদালত। কিন্তু, মালদা জেলা পুলিশ তদন্তে সেইরকম উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি দেখাতে পারেনি। পুলিশি জেরায় হান জুনয়েই তার বাজেয়াপ্ত ল্যাপটপ এবং আইফোনের পাসওয়ার্ড দেয়নি। এখনও সেই যন্ত্রগুলিখুলতে পারেননি পুলিশ। অন্য এক ফোনে, উইচ্যাট অ্যাপে ম্যান্ডারিন ভাষায় কিছু কথোপকথনও রয়েছে, তারও পাঠোদ্ধার করতে পারেনি। এর জন্য ভাষাবিদদের সাহায্য নেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছিল। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এদিনই জুনয়েইকে নিয়ে গিয়ে সীমান্তে অনুপ্রবেশের ঘটনার পুনর্নির্মাণ করেছিল পুলিশ।

সেইসঙ্গে সন্দেহ করা হচ্ছিল চিনা এই নাগরিকেরশরীরে কোন যন্ত্র বা মাইক্রোচিপ লুকোনো থাকতে পারে। তই বডি স্ক্যান করার কথা চলছিল। চিনা সামরিক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি ভাষায় স্নাতক এই চিনা যুবক, ম্যান্ডারিন ও ইংরাজির পাশাপাশি আরও বেশ কয়েকটি ভাষায় দক্ষ বলে অনুমান পুলিশের। মালদার পুলিশ সুপার-সহ একাধিক পুলিশ আধিকারিক জেরা করেও তার থেকে কথা বের করতে পারেনি। একেকজনকে একেক কথা বলে বিভ্রান্ত করেছে সে। এই অবস্থায় এসটিএফ-কে এই ঘটনার তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হল। বিষয়টির সঙ্গে অনেক বড় কিছু জড়িয়ে থাকতে পারে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন - রহস্য বাড়ছে ধৃত চিনা যুবককে ঘিরে - শরীরে কি লুকোনো গোপন যন্ত্র, হবে বডিস্ক্যান

আরও পড়ুন - আজ বিশ্ব বায়ু দিবস - কেন এই দিনটি পালন করা হয়, জেনে নিন এর ইতিহাস ও গুরুত্ব

আরও পড়ুন - নগ্ন করে ঘোরানো হল গ্রাম, তারপর ভিডিও ভাইরাল - ফের বাংলার বুকে যৌন হেনস্থা আদিবাসী মহিলার

গত বৃহস্পতিবার, ভোর ৬টা নাগাদ, বাংলাদেশ থেকে ভারতে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করে সীমান্তরক্ষী বাহিনীর হাতে ধরা পড়েছিল ওই চিনা নাগরিক। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর বিএসএফ তাকে তুলে দিয়েছিল পুলিশের হাতে। তার সঙ্গে ছিল, একটি ল্যাপটপ, একটি আইফোন-সহ তিনটি মোবাইল ফোন, প্রচুর ভারতীয় এবং বাংলাদেশী টাকা, মার্কিন ডলার, একটি চাইনিজ পাসপোর্ট (বাংলাদেশী ভিসা-সহ), এবং বেশ কয়েকটি ইলেকট্রনিক গ্যাজেট। ধরা পড়ার পর ৫ দিন চলে গেলেও, কী মতলবে সে ভারতে অনুপ্রবেশ করেছিল, তা এখনও জানা যায়নি।