থানায় ড্রাইভার ব্যারাকে কর্তব্যরত এক সিভিক ভলেন্টিয়ার এর আত্মহত্যার চেষ্টার ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল রায়গঞ্জ শহরে। তার নাম বাপ্পা দাস। এ দিন রাত ন'টা নাগাদ থানার ড্রাইভার ব্যারাকে ওই সিভিক ভলেন্টিয়ার গলায় ফাঁস লাগিয়ে ও হাতের পেশি কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে  রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

আরও পড়ুন, বেতন বৃদ্ধির কথা ঘোষণা করল বিদ্যুৎ দপ্তর, নয়া বেতনক্রমের আওতায় অবসরপ্রাপ্তরাও

সূত্রের খবর, থানায় ড্রাইভার ব্যারাকে কর্তব্যরত এক সিভিক ভলেন্টিয়ার এর আত্মহত্যার চেষ্টার ঘটনায় রীতিমত উত্তেজনা ছড়ায় রায়গঞ্জ এলাকায়। আশেপাশে থাকা কর্তব্যরত সিভিক ভলেন্টিয়ার ও অন্যান্য পুলিশকর্মীদের সহযোগিতায় শেষ পর্যন্ত তাকে উদ্ধার করে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে গিয়ে তাকে সুস্থ করার চেষ্টা চালাচ্ছেন কর্তব্যরত চিকিৎসকরা। থানা সূত্রে খবর এর আগেও একই ভাবে নিজেকে শেষ করতে চেয়েছিলেন  বাপ্পা বাবু। আত্মহত্যার চেষ্টা করা সিভিক ভলেন্টিয়ার বাপ্পা দাস বলেন 'থানায় থাকা কোন এক দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসারের হেনস্থা কারণেই বারবার করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে সে। মানসিক অবসাদের বসেই এমন পদক্ষেপ করেছি আমি। কোন ভাবেই আমাকে কাজ করতে দেওয়া হচ্ছিল না। সেই কারণেই এমন পদক্ষেপ নিয়েছি আমি।'

আরও পড়ুন, রায়গঞ্জে শুরু হয়েছে প্রকৃতি পাঠ শিবির, বাবা-মা ছাড়াই জঙ্গলে রাত কাটাবে শিশুরা
 

রায়গঞ্জ থানা সূত্রে জানা গিয়েছে,  ওই সিভিক ভলেন্টিয়ার এর আগেও একই ভাবে নিজে আত্মঘাতী হতে চেয়েছিলেন। সেবারও তাকে কর্তব্য রত অফিসারেরা কোনভাবে উদ্ধার করে। এই বিষয়ে এখনও পর্যন্ত পুলিশের শীর্ষ আধিকারিকদের তরফ থেকে কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন, সকাল থেকেই মেঘলা আকাশ শহরে, যে কোনও মুহুর্তে ঝেঁপে আসতে পারে বৃষ্টি