Asianet News BanglaAsianet News Bangla

'ফার্স্ট ট্রেন' না পেতেই সাতসকালে শুরু ট্রেন অবরোধ,  বিপর্যস্ত শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখায় রেল পরিষেবা

 শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখায় বিপর্যস্ত রেল পরিষেবা। ফাস্ট ট্রেন না চলায় চরম ভোগান্তির মুখোমুখি প্রান্তিক স্টেশন থেকে আসা শিয়ালদহগামী যাত্রীরা প্রবল সমস্যায় পড়েছেন। আর সেই ক্ষোভ উগরে দিয়ে ট্রেন অবরোধ করলেন প্রতিবাদী যাত্রীরা। 

Passengers blocked the train at Taldi station on Canning line in the Sealdah southern branch on wednesday morning RTB
Author
Kolkata, First Published Jan 5, 2022, 8:38 AM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

বুধবার সাতসকালেই একাধিক জায়গায় শুরু রেল অবরোধ (Rail strike)। শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখায় বিপর্যস্ত রেল পরিষেবা। ফাস্ট ট্রেন না চলায় চরম ভোগান্তির মুখোমুখি প্রান্তিক স্টেশন থেকে আসা শিয়ালদহগামী যাত্রীরা প্রবল সমস্যায় পড়েছেন। আর সেই ক্ষোভ উগরে দিয়ে ট্রেন অবরোধ করলেন প্রতিবাদী যাত্রীরা। বুধবার সকালেই শিয়ালদহের দক্ষিণ শাখায় ক্যানিং লাইনের তালদি স্টেশনের লাইনের (Taldi station on Canning line) উপর লোহার পাত তুলে দেয় ক্ষুব্ধ রেল যাত্রীরা। যার জেরে সাতসকালেই বিপর্যস্ত  শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখায় রেল পরিষেবা (Sealdah southern branch)।

এদিন সকালে ভোরের ট্রেন চালানোর দাবিতে বিভিন্ন জায়গায় রেল অবরোধ চলছে। রেলের দাবি, রাজ্যের নির্দেশিকা মেনে ভোর ৫ টা থেকে  ট্রেন পরিষেবা শুরু করা হচ্ছে। যেহেতু ৫ টা পর্যন্ত নাইট কারফিউ চলছে। এদিকে ফাস্ট ট্রেন না চলায় চরম  অসুবিধায় পড়েছেন প্রান্তিক স্টেশন থেকে আসা শিয়ালদহগামী যাত্রীরা। তাঁদের অভিযোগ, ক্যানিং থেকে শিয়ালদহগামী প্রথম আপ ট্রেন ৩ টে ৫২ মিনিটে ছাড়ে। সেই ট্রেন না চলার কারণে বহু মানুষ কর্মস্থানে যেতে পারছেন না। এরপরেই বিক্ষোভ শুরু হয়। প্রায় হাজার খানেক যাত্রী রেললাইনের উপর দাঁড়িয়ে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। পুরোপুরি বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে ক্যানিং লাইনের ট্রেন চলাচল। খবর পেতেই ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থলে পৌছেছে জিআরপি এবং আরপিএফ বাহিনী। বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সরাসরি রেল কর্তৃপক্ষের তরফে জিআরপি এবং আরপিএফ বাহিনী কথা বলে পরিস্থিতি বোঝানোর চেষ্টা করছে। শেষ অবধি পাওয়া খবরে, নিত্য যাত্রীদের তাতে বোঝানো সম্ভব হয়নি। অবরোধ চলছে। সবমিলিয়ে  বিপর্যস্ত  শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখায় রেল পরিষেবা। নিত্য যাত্রীদের অভিযোগ, 'কোভিডের জেরে এমনিতেই ব্যহত রেল পরিষেবা। অথচ বাকি সবই খোলা। এতে দিন আনা দিন খাওয়া মানুষের রুজি-রুটির উপর প্রভাব পড়ছে। লোকাল ট্রেন পরিষেবা সচল রাখতে হবে। প্রয়োজনে বেশি ট্রেন চালাতে হবে।'

অপর এক বিক্ষোভকারীর দাবি, আমরা শহরে না গেলে গেলে খাব কী। আমাদের যাতায়াতের অন্যতম ব্যবস্থা ট্রেন। এমনিতেই গত লকডাউনে আমাদের খুব ক্ষতি হয়েছে। এবার ট্রেন পরিষেবা ঠিক না থাকলে করোনা হওয়ার আগেই প্রাণ হারাবো।' অপরদিকে, এইমাত্র পাওয়া খবরে বনগাঁ শাখাতেও প্রথম ও দ্বিতীয় ট্রেনের দাবিতে ঠাকুরনগরেও রেল অবরোধ হয়েছে। ৩ টা ১০ মিনিটে প্রথম ট্রেন ও দ্বিতীয় ট্রেনের দাবিতে রাত দুটো থেকে ঠাকুরনগর রেল গেটে অবরোধ শুরু করেছে ফুল ব্যবসায়ীরা। রাত দুটো থেকে রেল লাইনের উপর ফুলের বোঝা ফেলে অবরোধ শুরু হয়েছে।

 

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios