সোনাই নদী থেকে উদ্ধার হল প্রচুর রুপোর গয়না। ঘটনাটি ঘটেছে, বসিরহাট মহাকুমার স্বরূপনগর থানার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে দহরখন্দ এলাকা। গয়নাগুলো ইতিমধ্য়েই তেতুলিয়া শুল্ক দফতরের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। তবে এত পরিমান রুপোর গয়না ঘিরে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা। কোথা থেকে কীভাবে এল তা নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে।

আরও পড়ুন, মাঘ পড়তেই শুরু বামুনবুড়ির পূজো, সন্তুষ্ট করতে পঞ্চাশ হাজার মালসা ভোগ

 রবিবার ভোর বেলা ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের সোনাই নদীর ধারে একজনকে অবৈধভাবে ঘোরাঘুরি করতে দেখে জওয়ানরা। বিএসএফের ১১২ নম্বর ব্যাটেলিয়ানের জি কোম্পানির জওয়ানদের চোখে পড়ায়, তখনই একটি প্যাকেট ফেলে রেখে পালায় ওই পাচারকারী। পরে কোম্পানি কমান্ডার শ্রী ঋষি মিশ্রা নেতৃত্বে বিএসএফ জওয়ানরা গিয়ে সোনাই নদীতে যায়। সেখান থেকেই একটি বড় প্যাকেটটি উদ্ধার করে। এবং প্রায় সাড়ে তিন কিলো রুপোর গয়না উদ্ধার করে। এই মুহূর্তে  উদ্ধার করা গয়না যার বর্তমান বাজারমূল্য লক্ষাধিক টাকা। 

আরও পড়ুন, সরকারি আধিকারিককে মার তৃণমূল নেতার, নালিশ পৌঁছল নবান্নে

তবে এই ঘটনায় এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি। ইতিমধ্য়েই ওই পাচারচক্রের খোঁজ চলছে। তবে এত পরিমান রুপোর গয়না কোথা থেকে কীভাবে নিয়ে এল পাচারকারী, তা খতিয়ে দেখছে তদন্তকারীরা। তদন্তকারীদের প্রাথমিক অনুমান, রুপোর গয়না গুলো বাংলাদেশে পাচার করার উদ্দেশ্য ছিল। পাচারকারীর প্রধান মাথাকে খুঁজে পাওয়া গেলেই বেরিয়ে আসবে নতুন তথ্য়। জট কাটবে এই রুপো রহস্য়ের।