গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে নজিরবিহীন ঘটনার সাক্ষী থাকল মুর্শিদাবাদ। সমশেরগঞ্জের তৃণমূলের বিধায়ক আমিরুল ইসলাম বনাম তৃণমূলের জেলা পরিষদের সদস্য তথা স্বাস্থ্য কর্মাধ্যক্ষ আনারুল হক-এর দ্বৈরথ ঘিরে নয়া মাত্রা নিল মুর্শিদাবাদের রাজনীতি। তৃণমূল বিধায়ক আমিনুল ইসলামের বিরুদ্ধে অভিযোগ, লোক লাগিয়ে আনারুলের দুই নাবালক ছেলেকে স্কুল যাওয়ার পথে অপহরণের চেষ্টা করেন তিনি। শনিবার এ বিষয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে  ৬ জনের নামে। 

কী গল্প কলকাতাকে শোনাল রোবট কন্যা সোফিয়া, দেখুন সেরা ১২ ছবি

এদিকে অভিযুক্ত তৃণমূলের বিধায়ক আমিরুল ইসলাম তার বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ মিথ্যে ও পরিকল্পিত বলে নস্যাৎ করেছেন।  তিনি বলেন," এমন অভিযোগের ন্যূনতম কোনও ভিত্তি নেই। পুরোপুরি আমার নাম কালিমালিপ্ত করতেই এই প্রচেষ্টা করা হচ্ছে"। যদিও পাল্টা এই ঘটনায় বিধায়ক আমিরুল ইসলামকে দায়ী করেই আনারুল হক বলেন," এটা বিধায়ক আমিনুল ইসলামের মদতে হয়েছে। এই এলাকায় এত সাহস কারও নেই যে, সামশেরগঞ্জ থেকে আমার ছেলেকে অপহরণ করে নিয়ে যাবার চেষ্টা করবে"। 

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, এলাকায় দীর্ঘদিন ধরেই শাসকদলের বিধায়ক বনাম জেলা পরিষদের সদস্যের কাজিয়া চলছে। জানা গিয়েছে,আনারুল হকের দুই নাবালক স্কুল পড়ুয়া ছাত্র এলাকার হোলি ফেথ স্কুলের ছাত্র। প্রতিদিনের মতো শুক্রবার ওই দুই নাবালক ছেলেকে নিয়ে আনোয়ারুল হকের ব্যক্তিগত কর্মচারী আরশাদ আলি স্কুলে নিয়ে যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বের হয় মোটর বাইকে করে। 

এবার কিডনিতেও ছড়াল সংক্রমণ, পোলবায় জখম ঋষভের অবস্থার আরও অবনতি

অভিযোগ, পথেই জনা কয়েক দুষ্কৃতী আনোয়ারুল হকের ছেলেদের রাস্তা আটকে তাদের অস্ত্র বোমা দেখিয়ে অপহরণের চেষ্টা করে। এমন সময় সুযোগ বুঝে ওই দুই নাবালক চিৎকার করে আশেপাশের লোকজন তড়িঘড়ি ছুটে আসে ঘটনাস্থলে। সুযোগ বুঝে সদলবলে পিঠটান দেয় অপহরণকারীরা। পরবর্তীকালে সমস্ত ঘটনা জানার পরই তৃণমূলের জেলা পরিষদের সদস্য তথা এলাকার নেতা আনারুল হক যাবতীয় ঘটনার জন্য মূল চক্রী হিসেবে এলাকারই তৃণমূল বিধায়ক আমিরুল ইসলামকে দায়ী করে। 

তাপস সহ তিন মৃত্যুর জন্য দায়ী কেন্দ্র, বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন মুখ্যমন্ত্রী

এই পরিস্থিতিতে দলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নিয়ে পুরো ঘটনায় মুর্শিদাবাদ লোকসভা কেন্দ্রের সংসদ তথা জেলা তৃণমূল সভাপতি আবু তাহের খান শনিবার বলেন," এই ধরনের ঘটনা একেবারে অনভিপ্রেত। আমাদের দলের কোনও বিধায়ক এই ধরনের অপহরণ কাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত থাকার কোনও প্রশ্নই ওঠে না। ঠিক কী কারণে যাবতীয় সমস্যা তৈরি হচ্ছে তার খোঁজ নিয়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে"।