Asianet News BanglaAsianet News Bangla

TMC leader: উস্তির গুলিবর্ষণকাণ্ডে লড়াই শেষ, SSKM-এ তৃণমূল নেতার মৃত্যু

উস্তির গুলিবর্ষণকাণ্ডে তৃণমূল নেতার মৃত্যু। চলতি মাসের ১৯ তারিখ তৃণমূল যুব অঞ্চল সভপতিকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। 

 

TMC leader Sujauddin Gazi dies in SSKM Hospital due to shooting in South 24 Parganas RTB
Author
Kolkata, First Published Dec 25, 2021, 1:46 PM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

উস্তির গুলিবর্ষণকাণ্ডে তৃণমূল নেতার মৃত্যু। চলতি মাসের ১৯ তারিখ মগরাহাটের তৃণমূল যুব অঞ্চল সভাপতি সুজাউদ্দীন গাজীকে ( TMC leader Sujauddin Gazi ) লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়।  এরপর ওই তৃণমূল যুব অঞ্চল সভপতিকে এসএসকেম চিকিৎসা করা হচ্ছিল।  কিন্তু শেষ রক্ষা হল না ক্রিসমাসের আগের রাতেই হাসপাতালেই তাঁর মৃত্যু হয়। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগণার (South 24 Parganas ) উস্তি থানা এলাকায়। মৃত্য়ু খবর ছড়িয়ে পড়তেই ইতিমধ্যেই এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, রবিবার রাত সাড়ে ৯ টা নাগাদ  দক্ষিণ ২৪ পরগণার উস্তি থানা এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে। আক্রান্তের নাম সুজাউদ্দীন গাজী। তিনি মগরাহাট পশ্চিম বিধানসভা কেন্দ্রের উত্তর কুসুম অঞ্চলের যুব তৃণমূল সভাপতি। ঘটনার দিন প্রথমে রক্তাক্ত অবস্থায় প্রথমে বাণেশ্বর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।কিন্তু শারীরিক অবস্থার দিকে তাঁকিয়ে সেই রাতেই তৃণমূল যুব অঞ্চল সভাপতি সুজাউদ্দীন গাজীকে কলকাতায় রেফার করা হয়। এই ঘটনায় সুজাউদ্দীনের অনুগামীদের বিরুদ্ধেই অভিযোগ উঠেছে। মগরাহাট পশ্চিমের বিধায়ক গিয়াসউদ্দীন যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

আরও পড়ুন, কীভাবে রাজ্য মিস্ত্রিদের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়েছিলেন, পুলিশের সামনে মুখ খুললেন ২ গৃহবধূ 

মগরাহাটের তৃণমূল যুব অঞ্চল সভাপতি সুজাউদ্দীন গাজীর মৃত্য়ুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। শোক প্রকাশ করেছেন তৃণমূলের স্থানীয় নেতারাও। দলের নেতারা হাসপাতাল থেকে শনিবার প্রথমে সুজাউদ্দীনের দেহ নিয়ে যান দলীয় কার্যালয়ে। এরপর সেখান থেকে মৃতদেহ নিয়ে যান বাড়িতে। এদিন তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে। এই ঘটনায় জড়িতদের উপযুক্ত শাস্তি দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন পরিবারের লোকেরা। ১৯ ডিসেম্বর উস্তির কারবালা থেকে হালদার হাটের দিকে বাইকে করে যাওয়ার সমই সুজাউদ্দিনের উপর হামলা চালায় কিছু দুষ্কৃতি।প্রকাশ্যে তৃণমূল যুব অঞ্চল সভাপতি সুজাউদ্দীন গাজীকে বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি চালায়। এরপরেই তাঁকে আশঙ্কাজনক অবস্থায়  প্রথমে বাণেশ্বর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।কিন্তু শারীরিক অবস্থার দিকে তাঁকিয়ে সেই রাতেই তৃণমূল যুব অঞ্চল সভাপতি সুজাউদ্দীন গাজীকে রেফার করা হয় কলকাতার এসএসকেমে। চিকিৎসকেরা জানান, একটি গুলি সুজাউদ্দীনের শরীর ভেদ করে বাইরে বেরিয়ে গিয়েছে। এদিকে হাসপাতাল যাওয়ার পথেই পুলিশকে বেশ কয়েকজনের নাম বলতে সক্ষম হয়েছিল সুজাউদ্দীন। প্রাথমিকভাবে পুলিশ তার কাছ থেকে এই ঘটনা ৭ জনের নাম জানতে পেরেছে। সুজাউদ্দীনের বয়ানের ভিত্তিতে তাঁদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

 

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios