করোনা ভাইরাসে কেউ আক্রান্তও হননি, কিন্তু খবর ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ঘটনাটি নজরে আসতেই নড়চড়ে বসল প্রশাসন। গুজব ছড়ানোর অভিযোগে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। নদিয়ার তেহট্টের ঘটনা।

আরও পড়ুন: ব্যর্থ হল সব চেষ্টা, পোলবার পুলকার দুর্ঘটনায় আহত ছাত্র ঋষভের মৃত্যু

শুরু হয়েছিল চিনে। করোনা ভাইরাসের এখন ছড়িয়েছে গোটা বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে। এখনও পর্যন্ত ২৫টি দেশে মারণ ভাইরাসের হদিশ মিলেছে। নদিয়ার তেহট্টেও নাকি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে অনেকেই ভর্তি হাসপাতালে! এমনই খবরে ছয়লাপ সোশ্যাল মিডিয়া। রীতিমতো আতঙ্ক ছড়িয়েছে এলাকায়। প্রশাসন সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার সকালে কেউ বা কারা করোনা ভাইরাস নিয়ে একটি পোস্ট দেয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেটিই ভাইরাল হয়ে দিয়েছে। ওই পোস্টে বলা হয়েছে, তেহট্টের চাঁদের ঘাট এলাকার অনেকেই করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্তেরা ভর্তি তেহট্ট হাসপাতালে। কোনও এক চিকিৎসক নাকি জানিয়েছেন, যাঁরা এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে, তাঁরা পোলট্রির মুরগির মাংস খেয়েছিলেন! ওই পোস্টে আরও বলা হয়েছে, কৃষ্ণনগরের চিকিৎসকও নাকি করোনা ভাইরাসের শিকার। তাঁর চিকিৎসা চলছে। এই ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে হলে কী করতে হবে, সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট দিয়ে তাও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, পোলট্রির মুরগির মাংস খাওয়া যাবে না এবং বাচ্চাদেরও মুরগি থেকে দূরে রাখতে হবে। কিন্তু ঘটনা হল, চাঁদের ঘাট এলাকায় তো নয়ই, তেহট্ট মহকুমার কোথাও কেউ এই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হননি। তেমনটাই জানানো হয়েছে হাসপাতালের তরফে।

আরও পড়ুন: 'সেফ ড্রাইভ, সেভ লাইফ কাদের শেখাব', ঋষভের মৃত্যুতে চোখে জল সাংসদেরও

তাহলে সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়াল কী করে? তেহট্টের চাঁদের ঘাট এলাকার বাসিন্দাদের একাংশের দাবি, নীলকান্ত বৈরাগ্য নামে স্থানীয় এক যুবকের প্রোফাইল থেকে প্রথম করোনা ভাইরাস নিয়ে ভুয়ো তথ্য পোস্ট করা হয়। ধীরে ধীরে তা ছড়িয়ে পড়ে গোটা এলাকায়। ওই যুবককে আটক করেছে পুলিশ। সাংবাদিক বৈঠক করে সাধারণ মানুষকে আশ্বস্ত করা হয়েছে প্রশাসনের তরফে। অযথা আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।