এ বছরে ১৪ নভেম্বর শনিবার পালিত হবে দীপাবলি। "দীপাবলি" শব্দটির অর্থ "প্রদীপের সমষ্টি"। এই দিন হিন্দুরা ঘরে ঘরে ছোটো মাটির প্রদীপ জ্বালেন। এই প্রদীপ জ্বালানো অমঙ্গল বিতাড়নের প্রতীক। বাংলার দীপান্বিতা কালীপূজা বিশেষ জনপ্রিয়। এই উৎসব সাড়ম্বরে আলোর উৎসব হিসেবে পালিত হয়। এই দিনে বাড়িঘর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে সারা রাত প্রদীপ জ্বালিয়ে রাখলে ঘরে লক্ষ্মী আসেন বলে উত্তর ভারতীয় হিন্দুরা বিশ্বাস করেন।

আরও পড়ুন- কার্তিক মাস কেমন প্রভাব ফেলবে কুম্ভ রাশির উপর, দেখে নিন

স্কন্ধ পুরাণ মতে, যমরাজের জন্য এদিনে প্রদোষকালে প্রদীপ ও নৈবেদ্য উৎসর্গ করলে বাড়িতে অকাল মৃত্যুর সম্ভাবনা অনেক কমে যায়। তবে চলুন জেনে নেওয়া যাক, কীভাবে এই শুভ তিথিতে বাড়িকে বিপদমুক্ত করতে পুজো করবেন যমরাজের। স্কন্ধ পুরাণ মতে, যমরাজের জন্য এদিনে প্রদোষকালে প্রদীপ ও নৈবেদ্য উৎসর্গ করলে বাড়িতে অকাল মৃত্যুর সম্ভাবনা অনেক কমে যায়। তবে চলুন জেনে নেওয়া যাক, কীভাবে এই শুভ তিথিতে বাড়িকে বিপদমুক্ত করতে পুজো করবেন যমরাজের।

আরও পড়ুন- মঙ্গলবারে ৬ রাশির আর্থিক সমস্যা বৃদ্ধি পেতে পারে, দেখে নিন আপনার রাশিফল

এই দিনে মাটির প্রদীপ কিনে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। এরপর প্রদীপে সলতে দুটি ক্রশ করে এমনভাবে রাখুন যাতে প্রদীপের বাইরে চারটি দিক দিয়ে প্রদীপটি জ্বালানো যায়। এবারে প্রদীপটি তিলের তেল দিয়ে ভরে দিন। এবারে প্রদীপের মধ্যে কিছুটা কালো তিল দিয়ে দিন। এবার এই প্রদীপটির বাড়ির মূল দরজার সামনে মাটির তাল বা গমের ছোট্ট গাদা তৈরি করে তার উপরে দক্ষিণ মুখ করে বসিয়ে দিন। এরপর হাতে ফুল নিয়ে যম দেবকে স্মরণ করে অভিবাদন করুন। 'নম যমদেবায় নমঃ' মন্ত্র উচ্চারণের মাধ্যমে স্মরণ করুন। ধনতেরাসের দিন নিয়মে পুজো করলে এবং দীপদান করলে, সেই বাস্তু থেকে অকাল মৃত্যু ভয় কিছুটা হলেও কাটানো যায়।