পুজোর শুকনো ফুল রাখলে উত্তেজনার পরিবেশ তৈরি হয়, ঘরে আসে নেগেটিভ শক্তি

| Apr 26 2022, 10:25 AM IST

পুজোর শুকনো ফুল রাখলে উত্তেজনার পরিবেশ তৈরি হয়, ঘরে আসে নেগেটিভ শক্তি

সংক্ষিপ্ত

বাস্তুশাস্ত্রে এমন অনেক কথা বলা হয়েছে, যা ঘরের নেতিবাচক শক্তিকে ধ্বংস করে এবং ইতিবাচকতা ছড়ায়। পূজায় ব্যবহৃত ফুল সম্পর্কেও বাস্তুশাস্ত্রে একই কথা বলা হয়েছে। পূজায় ব্যবহৃত ফুল কিছু দিন পর শুকিয়ে গেলেও মানুষ সেখানেই রাখে। বাস্তু বিশেষজ্ঞরা বলেন, শুকনো ফুল কখনই ঘরে রাখা উচিত নয়। বরং বাড়িতে তাজা ফুল ব্যবহার করুন।
 

বাস্তু শব্দটি এসেছে বস্তু থেকে- বস্তু মানে যেকোনো বস্তু, মূলত বাস্তু বলতে সব কিছুকেই বুঝায়- তা একটি স্থান হতে পারে- কিংবা একটা বাড়িও হতে পারে। ভারতীয় উপমহাদেশে প্রায় সভ্যতার সূচনালগ্ন থেকে স্থাপত্য নির্মাণকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। এই বাস্তু অনুসারে এমন অেক নিয়ম আছে যা ঘরের নেগেটিভ শক্তি দূর করতে কাজ দেয়।

বাস্তুশাস্ত্রে এমন অনেক কথা বলা হয়েছে, যা ঘরের নেতিবাচক শক্তিকে ধ্বংস করে এবং ইতিবাচকতা ছড়ায়। পূজায় ব্যবহৃত ফুল সম্পর্কেও বাস্তুশাস্ত্রে একই কথা বলা হয়েছে। পূজায় ব্যবহৃত ফুল কিছু দিন পর শুকিয়ে গেলেও মানুষ সেখানেই রাখে। বাস্তু বিশেষজ্ঞরা বলেন, শুকনো ফুল কখনই ঘরে রাখা উচিত নয়। বরং বাড়িতে তাজা ফুল ব্যবহার করুন।

ঘরে তাজা ফুল রাখলে ইতিবাচক শক্তি আসে। চীনা বাস্তুশাস্ত্রে এটি ইয়াং এনার্জি নামে পরিচিত। এটা বিশ্বাস করা হয় যে তাজা ফুল যেখানে বাস করে, তারা তাদের শক্তি দিয়ে অন্য প্রাণীকে ভিজিয়ে দেয়, কিন্তু যখন এই ফুলগুলি শুকিয়ে যায়, তখন তারা নেতিবাচকতায় ঘর পূর্ণ করে। মানুষ তার চারপাশে থাকার দ্বারা তাদের শক্তির ক্ষতি অনুভব করে। বলা হয়ে থাকে যে, যদি কোনও মানুষের স্বাস্থ্য ভালো না থাকে, তাহলে তার ঘরে তাজা ফুল রাখুন। এটি একটি প্রতিষেধক হিসাবে প্রমাণিত হয়। কিন্তু এসব ফুল শুকিয়ে গেলে তা কোন বিষের চেয়ে কম থাকে না।

শুকনো ফুল দিয়ে কি করবেন
লোকেরা প্রায়শই পূজায় ব্যবহৃত ফুল বা মন্দির থেকে প্রাপ্ত ফুল বাড়িতে আশির্বাদ হিসাবে রেখে দেন। ঈশ্বরের আশির্বাদের কথা বিবেচনা করে সেগুলো রাখুন। কিন্তু বাস্তু মতে এমনটা করা ভুল। বিশ্বাস করা হয় যে ঘরে রাখা শুকনো ফুল নেতিবাচকতা ছড়াতে শুরু করে। অতএব, হয় এই ফুলগুলিকে কিছু চলমান জলে ফেলে দিন। এ ছাড়া যে কোনও গাছের মাটিতেও এসব ফুল পুঁতে রাখা যায়। শুকনো ফুলও হাঁড়ি ইত্যাদিতে রাখা যেতে পারে।

Subscribe to get breaking news alerts

আরও পড়ুন- জন্মছকে বুধের প্রভাব, জ্যোতিষ মতে জানুন এর প্রভাবে জীবনে কি কি পরিবর্তন ঘটে

আরও পড়ুন- আর্থিক সমস্যা থেকে সঞ্চয়ে বাধা, বাস্তুর এই নিয়ম মেনে কাটিয়ে উঠুন সকল সমস্যা

আরও পড়ুন- অন্যতম ও ঐতিহ্যবাহী ​​বুদ্ধ পূর্ণিমা, জানুন এর তিথি, শুভ সময় এবং ধর্মীয় তাৎপর্য


সভ্যতার ঊষালগ্ন থেকেই ভারতীও উপমহাদেশে শিল্পচর্চাকে ঊর্ধ্বে স্থান দেয়া হয়েছে। স্থাপত্যশৈলী উপবেদের অন্যতম বিষয়। স্থাপত্য উপবেদ বা স্থাপত্যশাস্ত্র চারটি উপবেদের অন্যতম। স্থাপত্য উপবেদ আবার অথর্ববেদ থেকে এসেছে। প্রায় ৫০০০ বছর ধরে বাস্তুবিদ্যা কালের বিরুদ্ধে নিরন্তর সংগ্রামে জয়ী হয়েছে। স্থাপত্য উপবেদ বা স্থাপত্য শাস্ত্রের সূত্রগুল পরবরতিকালে 'বাস্তুশাস্ত্র' শিরোনামে লিপিবদ্ধ হয়েছে। বৈদিক যুগে স্থাপত্য বিজ্ঞান মূলত মন্দির নির্মাণে ব্যবহৃত হত। 

null