করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ক্রমশই ভয়ঙ্কর আকার নিচ্ছে ভারতে। বৃহস্পতিবার  দুপুর পর্যন্ত আক্রান্তের  সংখ্যা ৬৪৫। এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১৬ জনের। এই পরিস্থিতিতে গোটা দেশই মরাত্মক ছোঁয়াচে এই ভাইরাসের আতঙ্কে ত্রস্ত। প্রাধনমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পরামর্শে ঘরেতেই রয়েছে। কিন্তু করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রায় জীবন হাতে লড়াই করছেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীরা। ভয়ঙ্কর এই লড়াইয়ের স্বীকৃতি দিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার প্রত্যেক চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীর জন্য ৫০ লক্ষ টাকার বিমার কথা ঘোষণা করেছে। 

কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন বৃহস্পতিবার সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছেন, আগামী তিন মাসের জন্য চিকিৎসা পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত প্রত্যেক ব্যক্তিকে ৫০ লক্ষ টাকার স্বাস্থ্য বিমার আওতায় আনা হবে। তিন মাসের মধ্যেই ভারত এই ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠতে পারবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন তিনি। 

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় দেশের চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীরা রাতদিন এক করে কাজ করছেন। একাধিক হাসপাতালে নতুন করে তৈরি হয়েছে আইসোলেশন ওয়ার্জ।  করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে কেন্দ্রীয় সরকার প্রথম থেকেই দেশের চিকিৎসকদের ওপরই ভরসা রেখেছে। গতরবিবারও প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে গোটা দেশে চিকিৎসক, স্বাস্থ্য কর্মী ও জরুরী পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত সকল ব্যক্তিদের স্বাগত জানিয়েছে। কিন্তু করোনা সংকট প্রকোট হওয়ার পরই মেডিক্যাল কিটের আকাল সামনে আসছে। একই সঙ্গে অভিযোগ উঠেছে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীরা প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম ও নিরাপত্তা পাচ্ছেন না। প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা না থাকার অভিযোগ তুলে ঝাড়খণ্ডের সিংভূমের সরকারি হাসপাতালের এক চিকিৎসক ইস্তফা দিয়েছিলেন। কিন্তু এদিন নির্মলা সীতারমন স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের জন্য স্বাস্থ্য বিমার কথা ঘোষণা করে কিছুটা হলেও মুখ বন্ধ করতে পেরেছেন সমালোচকদের।