সাত রাজ্যে মোট ৫৯ টি আসনের ষষ্ঠ দফার ভোট শুরু হল। এদিন ভোট হচ্ছে দিল্লি, উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানা, মধ্যপ্রদেশ, বিহার,ঝাড়খণ্ড এবং পশ্চিমবঙ্গে।

বিশেষজ্ঞদের মতে ষষ্ঠ ও সপ্তম দফা হতে চলেছে নরেন্দ্র মোদী ও রাহুল গাঁধীর টক্কর। প্রধানমন্ত্রী ৬ মে টুইট করেন," যে রাজীব গাঁধী বোফর্স কেলেঙ্কারিতে নাম লিখিয়েছিলেন, দিল্লি ও পাঞ্জাবে বহু শিখকে উচ্ছেদ হতে হয়েছে যার জন্য়ে, ভোপাল গ্যাস ট্র্যাজেডিতেও যার দায় আছে, পারলে তার নামে এই ভোটে অংশগ্রহণ করো ক্ষমতা থাকলে।" 

এই বক্তব্যের পরেই বিশেষজ্ঞমহল বলছে মোদী ভালই জানেন ভোটে শিখ সম্প্রদায়ের মানুষ ও মুসলিম মহিলারা বড় ভূমিকা নেবেন বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞরা। তাই এই পুরনো ইস্যুগুলিকে তুলে এনে পালে হাওয়া চাইছেন। 

ষষ্ঠ দফা শুরুর আগে সবচেয়ে বেশি বিতর্ক হয়েছিল উত্তর দিল্লি কেন্দ্রতে। সেখানকার আপ প্রতিনিধি অতিশী মারলেনা অভিযোগ করেন বিজেপি প্রতিনিধি গৌতম গম্ভীর তাঁর নামে কুৎসা ছড়াচ্ছে বাড়ি বাড়ি একটি প্যামফ্লেট বিলি করে।  এই অভিযোগকেএ কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘাত চরমে ওঠে। এদিম ইতিমধ্যেই ভোট দিয়ে ফেলেছেন গৌতম গম্ভীর। দিল্লিতে বেশ কিছু ইভিএম খারাপ বলে অভিযোগ এনেছে কংগ্রেস। 

মোট ৯৭৯ জন প্রতিনিধির ভাগ্য নির্ধারণকারী এই লোকসভা ভোটের ৮ টি করে সিট রয়েছে বাংলায়, বিহারে, মধ্যপ্রদেশে, সাতটি সিট রয়েছে দিল্লিতে, চারটি সিট রয়েছে ঝাড়খণ্ডে। বিকেল ৫টা পর্যন্ত চলবে ভোটগ্রহণ।  বাংলায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে রক্ত দিয়ে। কাঁথিতে এক তৃণমূল কর্মী এবং ঝাড়গ্রামে এক বিজেপি কর্মীর মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছে এদিন সকালেই। আরও কত হিংসে, হানাহানি? সময় বলবে।