চলছে পিতৃপক্ষ, মহামারি আবহে বাড়িতে থেকেও সারতে পারেন পূর্বপুরুষদের উদ্দেশ্যে কাজ

First Published 3, Sep 2020, 11:06 AM

পিতৃপক্ষে প্রেতকর্ম বা শ্রাদ্ধ বা তর্পণ, তর্পণ ইত্যাদি মৃত্যু-সংক্রান্ত আচার-অনুষ্ঠান পালিত হয়, সেই হেতু এই পক্ষ শুভকার্যের জন্য একদমই সঠিক সময় নয়। এই বছর পিতৃপক্ষ ২ থেকে ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত থাকবে। শাস্ত্রে বলা হয়েছে যে, গঙ্গার ঘাটে তর্পণ বা শ্রাদ্ধ বা তর্পণ বিশেষ ফলদায়ক, তবে আপনি যদি জরুরি বা মহামারীজনিত কারণে গঙ্গায় যেতে সক্ষম না হন তবে আপনি বিশেষ ভাবে সহজেই বাড়িতে এটি করতে পারবেন।

<p><strong>ঘরে বসে শ্রাদ্ধ বা তর্পণ ও তর্পণ করা যায়</strong></p>

<p>শ্রাদ্ধ বা তর্পণের তারিখে সূর্যোদয়ের আগে স্নান করুন এবং শ্রদ্ধা কর্ম না হওয়া পর্যন্ত কিছু খাবেন না। কেবল জল পান করতে পারেন। দুপুর বারোটার দিকে শ্রাদ্ধ বা তর্পণ করা হয়।</p>

ঘরে বসে শ্রাদ্ধ বা তর্পণ ও তর্পণ করা যায়

শ্রাদ্ধ বা তর্পণের তারিখে সূর্যোদয়ের আগে স্নান করুন এবং শ্রদ্ধা কর্ম না হওয়া পর্যন্ত কিছু খাবেন না। কেবল জল পান করতে পারেন। দুপুর বারোটার দিকে শ্রাদ্ধ বা তর্পণ করা হয়।

<p>বাম হাঁটুকে দক্ষিণ দিকে রেখে হাঁটু মাটিতে ঠেকিয়ে মন্ত্র উচ্চারণ করে মাটিতে বসতে হয়। এর পরে প্রশস্ত তামার পাত্রে যব, তিল, চাল, গরুর কাঁচা দুধ, গঙ্গা জল, সাদা ফুল এবং জল রাখতে হয়।</p>

বাম হাঁটুকে দক্ষিণ দিকে রেখে হাঁটু মাটিতে ঠেকিয়ে মন্ত্র উচ্চারণ করে মাটিতে বসতে হয়। এর পরে প্রশস্ত তামার পাত্রে যব, তিল, চাল, গরুর কাঁচা দুধ, গঙ্গা জল, সাদা ফুল এবং জল রাখতে হয়।

<p>হাতে কুশ ঘাস রেখে তার উপরে দুই হাতে জল নিয়ে পূর্ব-পুরুষদের উদ্দেশ্যে অর্পণ করতে হয়। মহিলাদের ক্ষেত্রে পূর্ব-পুরুষদের জন্য পরিষ্কার করে খাবার তৈরি করতে হয়। শ্রদ্ধা সহকারে ব্রাহ্মণকে দক্ষিণা এবং অন্যান্য সামগ্রী দান করতে হয়।</p>

হাতে কুশ ঘাস রেখে তার উপরে দুই হাতে জল নিয়ে পূর্ব-পুরুষদের উদ্দেশ্যে অর্পণ করতে হয়। মহিলাদের ক্ষেত্রে পূর্ব-পুরুষদের জন্য পরিষ্কার করে খাবার তৈরি করতে হয়। শ্রদ্ধা সহকারে ব্রাহ্মণকে দক্ষিণা এবং অন্যান্য সামগ্রী দান করতে হয়।

<p>অথর্ব বেদে উল্লেখ রয়েছে যে, সূর্য যখন কন্যা রাশিতে থাকে তখন পিতৃপুরুষদের সন্তুষ্টির জন্য দান করলে তারা স্বর্গ লাভ করেন।&nbsp;</p>

অথর্ব বেদে উল্লেখ রয়েছে যে, সূর্য যখন কন্যা রাশিতে থাকে তখন পিতৃপুরুষদের সন্তুষ্টির জন্য দান করলে তারা স্বর্গ লাভ করেন। 

<p>এর পাশাপাশি, যজ্ঞবল্ক্য স্মৃতি এবং যম স্মৃতিতে এটিও উল্লেখ করা হয়েছে যে পিতৃপক্ষের এই ১৬ দিনের মধ্যে পিতৃপুরুষদের জন্য বিশেষ উপাসনা এবং দান করা উচিত।&nbsp;</p>

এর পাশাপাশি, যজ্ঞবল্ক্য স্মৃতি এবং যম স্মৃতিতে এটিও উল্লেখ করা হয়েছে যে পিতৃপক্ষের এই ১৬ দিনের মধ্যে পিতৃপুরুষদের জন্য বিশেষ উপাসনা এবং দান করা উচিত। 

<p>এগুলি ছাড়াও পুরাণ, ব্রহ্মা, বিষ্ণু, নারদ, স্কন্দ এবং ভাব্য পুরাণ সম্পর্কে কথা বলে পিতৃপক্ষের সময় পিতৃপুরুষদের কীভাবে উপাসনা করা যায় তা বলা হয়েছে।&nbsp;</p>

এগুলি ছাড়াও পুরাণ, ব্রহ্মা, বিষ্ণু, নারদ, স্কন্দ এবং ভাব্য পুরাণ সম্পর্কে কথা বলে পিতৃপক্ষের সময় পিতৃপুরুষদের কীভাবে উপাসনা করা যায় তা বলা হয়েছে। 

<p>আরও নানান পৌরানিক গ্রন্থে বলা হয়েছে যে পিতৃপক্ষের শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই পিতা ও তাঁর বংশধরদের দেখতে এবং তর্পণ পেয়ে পরলোকে পৌঁছান। অতএব, এই দিনগুলিতে পূর্বপুরুষদের সিদ্ধির জন্য তর্পণ, পিন্ডদান, ব্রাহ্মণ খাদ্য এবং অন্যান্য ধরণের দানও করা হয়।</p>

আরও নানান পৌরানিক গ্রন্থে বলা হয়েছে যে পিতৃপক্ষের শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই পিতা ও তাঁর বংশধরদের দেখতে এবং তর্পণ পেয়ে পরলোকে পৌঁছান। অতএব, এই দিনগুলিতে পূর্বপুরুষদের সিদ্ধির জন্য তর্পণ, পিন্ডদান, ব্রাহ্মণ খাদ্য এবং অন্যান্য ধরণের দানও করা হয়।

loader