লকডাউন ৫.০, ধর্মীয় স্থানে কি কি বিধি নিষেধ মেনে চলতে হবে জেনে রাখুন নিয়মগুলি

First Published 9, Jun 2020, 12:15 PM

শিথিল হয়েছে লকডাউন। বর্তমানে লকডাউন ৫.০ দেশে প্রযোজ্য। লকডাউন ৫.০-এ কিছু নিয়ম অনুসারে ধর্মীয় স্থান খোলার প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। কেন্দ্রের পাশাপাশি রাজ্যেও বিভিন্ন ধর্মীয় স্থান খোলার অনুমতি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। যার জন্য কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রক ধর্মীয় স্থানগুলি সম্পর্কিত একটি নির্দেশিকা জারি করেছে। এই সময় ধর্মীয় স্থানে গেলে এই সময় কী কী নিয়ম মেনে চলতে হবে জেনে নিন-

<p>নির্দেশিকা বলা হয়েছে যে কোনও ধর্মীয় স্থানে ঘন্টা বাজানো, প্রতিমার স্পর্শ করা নিষেধ হবে। সমস্ত ভক্তদের অবশ্যই মন্দির চত্বরে প্রবেশের আগে সাবান দিয়ে তাদের হাত ও পা ধুয়ে ফেলতে হবে। <br />
 </p>

নির্দেশিকা বলা হয়েছে যে কোনও ধর্মীয় স্থানে ঘন্টা বাজানো, প্রতিমার স্পর্শ করা নিষেধ হবে। সমস্ত ভক্তদের অবশ্যই মন্দির চত্বরে প্রবেশের আগে সাবান দিয়ে তাদের হাত ও পা ধুয়ে ফেলতে হবে। 
 

<p style="text-align: justify;">প্রবেশপথে শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হবে। যার ভিত্তিতে দর্শনার্থী মন্দিরে প্রবেশ করতে পারবে। কেবল সেই সমস্ত ব্যক্তিরই মন্দিরে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে, পাশাপাশি মাস্ক পরা না থাকলে মন্দিরে প্রবেশ সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ। </p>

প্রবেশপথে শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হবে। যার ভিত্তিতে দর্শনার্থী মন্দিরে প্রবেশ করতে পারবে। কেবল সেই সমস্ত ব্যক্তিরই মন্দিরে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে, পাশাপাশি মাস্ক পরা না থাকলে মন্দিরে প্রবেশ সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ। 

<p style="text-align: justify;">মন্দির চত্বরের বাইরে এবং ভিতরে লাইনগুলি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। যাতে লাইনে থাকা লোকেরা একে অপরের থেকে পর্যাপ্ত দূরত্ব বজায় রাখতে পারে।</p>

মন্দির চত্বরের বাইরে এবং ভিতরে লাইনগুলি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। যাতে লাইনে থাকা লোকেরা একে অপরের থেকে পর্যাপ্ত দূরত্ব বজায় রাখতে পারে।

<p>মন্দির চত্বরে প্রবেশ ও প্রস্থান করার জন্য পৃথক গেট ব্যবহার করতে হবে। ধর্মীয় স্থানের গর্ভগৃহ থেকে ৬ ফুট দূরত্বে থেকেই দর্শণ করতে হবে।</p>

মন্দির চত্বরে প্রবেশ ও প্রস্থান করার জন্য পৃথক গেট ব্যবহার করতে হবে। ধর্মীয় স্থানের গর্ভগৃহ থেকে ৬ ফুট দূরত্বে থেকেই দর্শণ করতে হবে।

<p>ধর্মীয় স্থানে বসার জন্য যে ব্যবস্থা করা হবে সেখানেও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। এসি চালানোর একজনকে সিপিডব্লিউডি নির্দেশিকা অনুসরণ করতে হবে, তাপমাত্রা ২৪ থেকে ৩০ ডিগ্রি রাখতে হবে।</p>

ধর্মীয় স্থানে বসার জন্য যে ব্যবস্থা করা হবে সেখানেও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। এসি চালানোর একজনকে সিপিডব্লিউডি নির্দেশিকা অনুসরণ করতে হবে, তাপমাত্রা ২৪ থেকে ৩০ ডিগ্রি রাখতে হবে।

<p>এছাড়াও বায়ুচলাচলটি ঘরে রাখতে হবে যাতে ঘর সর্বদা পরিষ্কার থাকে। ধর্মীয় চত্বরে থুথু ফেলা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ, পাশাপাশি বিপুল সংখ্যক লোকের চলাফেরা করার অনুমতি নেই।</p>

এছাড়াও বায়ুচলাচলটি ঘরে রাখতে হবে যাতে ঘর সর্বদা পরিষ্কার থাকে। ধর্মীয় চত্বরে থুথু ফেলা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ, পাশাপাশি বিপুল সংখ্যক লোকের চলাফেরা করার অনুমতি নেই।

<p>ধর্মীয় জায়গাগুলির ভিতরে প্রতিমা এবং পবিত্র বইয়ের স্পর্শ করা যাবে না।দল বেধে কোনও কীর্তন গাওয়ার ব্যবস্থা হবে না, রেকর্ড করা সংগীত বাজাতে হবে।</p>

ধর্মীয় জায়গাগুলির ভিতরে প্রতিমা এবং পবিত্র বইয়ের স্পর্শ করা যাবে না।দল বেধে কোনও কীর্তন গাওয়ার ব্যবস্থা হবে না, রেকর্ড করা সংগীত বাজাতে হবে।

<p>করোনার সুরক্ষা সম্পর্কিত তথ্যযুক্ত পোস্টার, ব্যানারগুলি ধর্মীয় স্থান প্রাঙ্গনে স্থাপন করতে হবে। প্রয়োজনে  ভিডিও চালাতে হবে। জুতো, চপ্পল, ভক্তদের নিজের গাড়িতেই রেখে আসতে হবে অথবা নিজের পর্যবেক্ষণে রাখতে হবে।</p>

করোনার সুরক্ষা সম্পর্কিত তথ্যযুক্ত পোস্টার, ব্যানারগুলি ধর্মীয় স্থান প্রাঙ্গনে স্থাপন করতে হবে। প্রয়োজনে  ভিডিও চালাতে হবে। জুতো, চপ্পল, ভক্তদের নিজের গাড়িতেই রেখে আসতে হবে অথবা নিজের পর্যবেক্ষণে রাখতে হবে।

<p>মন্দিরে প্রবেশের সময় পার্কিং লটে ভিড় ও দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। মন্দির চত্বরের বাইরের দোকান, স্টল, ক্যাফেটেরিয়ায় সর্বদা সামাজিক দূরত্বের নিয়ম অনুসরণ করতে হবে।</p>

মন্দিরে প্রবেশের সময় পার্কিং লটে ভিড় ও দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। মন্দির চত্বরের বাইরের দোকান, স্টল, ক্যাফেটেরিয়ায় সর্বদা সামাজিক দূরত্বের নিয়ম অনুসরণ করতে হবে।

<p>মন্দির চত্বরে কোনও ভক্তের মধ্যে করোনার লক্ষণগুলি পাওয়া যায়, তবে তাৎক্ষণিকভাবে এটি জেলা প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য বিভাগকে জানাতে হবে। মন্দির চত্বরে সংক্রামিত লোকদের যে জায়গা পাওয়া যাবে, সে জায়গাটি বন্ধ করতে হবে।</p>

মন্দির চত্বরে কোনও ভক্তের মধ্যে করোনার লক্ষণগুলি পাওয়া যায়, তবে তাৎক্ষণিকভাবে এটি জেলা প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য বিভাগকে জানাতে হবে। মন্দির চত্বরে সংক্রামিত লোকদের যে জায়গা পাওয়া যাবে, সে জায়গাটি বন্ধ করতে হবে।

<p>মন্দির চত্বরে নৈবেদ্য বিতরণ, ভক্তদের উপর শান্তির জল ছিটিয়ে দেওয়ার নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। ধর্মীয় স্থানগুলিতে সময়ে সময়ে স্যানিটাইজেশন করা প্রয়োজন, যেখানে হাত পা ধোওয়ার ব্যবস্থা, বাথরুম এবং টয়লেটগুলিতে বিশেষ ভাবে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে হবে। </p>

মন্দির চত্বরে নৈবেদ্য বিতরণ, ভক্তদের উপর শান্তির জল ছিটিয়ে দেওয়ার নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। ধর্মীয় স্থানগুলিতে সময়ে সময়ে স্যানিটাইজেশন করা প্রয়োজন, যেখানে হাত পা ধোওয়ার ব্যবস্থা, বাথরুম এবং টয়লেটগুলিতে বিশেষ ভাবে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখতে হবে। 

loader