কেন গণেশকে গণপতি বলা হয়, জেনে নিন সিদ্ধিদাতার জন্ম কাহিনী

First Published 19, Aug 2020, 10:39 AM

হিন্দু ধর্মে, গণেশের পুজো এবং আরতি না করে কোনও পুজো বা শুভ কাজ শুরু হয় না। প্রথম দেবতার খেতাব পেয়েছেন গণেজ। সুতরাং, প্রতিটি শুভ কাজে তাঁকে প্রথমে স্মরণ করা হয়, তাঁর পুজো করা হয়। শাস্ত্রে বুধবার গণেশকে উত্সর্গ করা হয়েছে। গণেশকে বলা হয় বিঘ্নহরতা। যিনি সমস্ত দুঃখ ও সমস্যাকে পরাস্ত করেন। তিনি ভক্তদের সমস্ত বাধা, রোগ, শত্রু এবং দারিদ্র্য দূর করেন। 

<p>মনে করা হয়, বুধবার গণপতির উপাসনা ও উপাসনা সমৃদ্ধি বাড়ায় এবং বুদ্ধের ত্রুটিও দূর করে। বিশ্বাস করা হয় যে এই দিনে গণেশের উপাসনা করলে তিনি তাঁর আশীর্বাদ লাভ করেন। বিশ্বাস অনুসারে, বুধবার গণেশের পুজো করা খুব উপকারী।</p>

মনে করা হয়, বুধবার গণপতির উপাসনা ও উপাসনা সমৃদ্ধি বাড়ায় এবং বুদ্ধের ত্রুটিও দূর করে। বিশ্বাস করা হয় যে এই দিনে গণেশের উপাসনা করলে তিনি তাঁর আশীর্বাদ লাভ করেন। বিশ্বাস অনুসারে, বুধবার গণেশের পুজো করা খুব উপকারী।

<p>২০২০ সালে ২২ আগস্ট শনিবার পালিত হবে গণেশ চতুর্থীর উত্সব। ভারতে গণেশ চতুর্থী পালিত হয় পুরো আড়ম্বরপূর্ণ ভাবে। গণেশ চতুর্থীকে বিনয়াকা চতুর্থীও বলা হয়। গণেশ চতুর্থীতে গণেশের পুজো হয় ১০ দিন ব্যাপি।&nbsp;</p>

২০২০ সালে ২২ আগস্ট শনিবার পালিত হবে গণেশ চতুর্থীর উত্সব। ভারতে গণেশ চতুর্থী পালিত হয় পুরো আড়ম্বরপূর্ণ ভাবে। গণেশ চতুর্থীকে বিনয়াকা চতুর্থীও বলা হয়। গণেশ চতুর্থীতে গণেশের পুজো হয় ১০ দিন ব্যাপি। 

<p>গণেশ চতুর্থীতে বহু মানুষ গণেশের মূর্তি তাদের বাড়িতে রাখেন এবং তাঁর সারা বছর পুজো করেন। রাত জেগে চলে ভগবান গণেশের ভজন, একাদিক প্রদীপ এবং গণেশ চতুর্থী পর্যন্ত পুজো পাঠ করেন। এরপর অনন্ত চতুর্দশীতে গণেশকে বিদায় জানানো হয়।&nbsp;</p>

গণেশ চতুর্থীতে বহু মানুষ গণেশের মূর্তি তাদের বাড়িতে রাখেন এবং তাঁর সারা বছর পুজো করেন। রাত জেগে চলে ভগবান গণেশের ভজন, একাদিক প্রদীপ এবং গণেশ চতুর্থী পর্যন্ত পুজো পাঠ করেন। এরপর অনন্ত চতুর্দশীতে গণেশকে বিদায় জানানো হয়। 

<p><strong>গণেশের জন্ম কাহিনী</strong></p>

<p>পৌরাণিক কাহিনী অনুসারে, নন্দী দেবী পার্বতীর সমস্ত আদেশ মেনে চলেন। একবার তিনি ভেবেছিলেন যে মাকে কিছু তৈরি করে দেওয়া উচিত, যা কেবল মা-এর আদেশ পালন করবে। এমন পরিস্থিতিতে তিনি একটি শিশুর আকার তৈরি করেছিলেন এবং তাঁতে জীবন দান করেছিলেন।&nbsp;</p>

গণেশের জন্ম কাহিনী

পৌরাণিক কাহিনী অনুসারে, নন্দী দেবী পার্বতীর সমস্ত আদেশ মেনে চলেন। একবার তিনি ভেবেছিলেন যে মাকে কিছু তৈরি করে দেওয়া উচিত, যা কেবল মা-এর আদেশ পালন করবে। এমন পরিস্থিতিতে তিনি একটি শিশুর আকার তৈরি করেছিলেন এবং তাঁতে জীবন দান করেছিলেন। 

<p>কথিত আছে যে, মাতা পার্বতী যখন স্নান করছিলেন, তখন তিনি শিশুটিকে বাইরে থেকে দ্বার রক্ষা করতে বললেন। মাতা পার্বতী শিশুটিকে নির্দেশ দিয়েছিলেন যে, তাঁর অনুমতি ব্যতীত কেউ যেন ভিতরে প্রবেশ না করে। এমন সময় ভগবান শিব পার্বতীর সঙ্গে দেখা করতে এলে গণেশ তাঁকে ভিতরে যেতে বাধা দেয়।&nbsp;</p>

কথিত আছে যে, মাতা পার্বতী যখন স্নান করছিলেন, তখন তিনি শিশুটিকে বাইরে থেকে দ্বার রক্ষা করতে বললেন। মাতা পার্বতী শিশুটিকে নির্দেশ দিয়েছিলেন যে, তাঁর অনুমতি ব্যতীত কেউ যেন ভিতরে প্রবেশ না করে। এমন সময় ভগবান শিব পার্বতীর সঙ্গে দেখা করতে এলে গণেশ তাঁকে ভিতরে যেতে বাধা দেয়। 

<p>এতে ভগবান শিব ক্রুদ্ধ হয়েছিলেন এবং তিনি অজান্তেই সেই শিশুটির মাথা দেহ থেকে আলাদা করেন। মাতা পার্বতী যখন বাইরে এলেন, সমস্ত কিছু দেখে তিনি রেগে গেলেন। তিনি তাঁর বাচ্চাকে বাঁচতে আদেশ দেন মহাদেব-কে। এর পরেই মানুষের বদলে হস্তির মাথা দান করে পুনরায় জীবন ফিরিয়ে দেওয়া হয় ওই শিশুটির দেহে।&nbsp;</p>

এতে ভগবান শিব ক্রুদ্ধ হয়েছিলেন এবং তিনি অজান্তেই সেই শিশুটির মাথা দেহ থেকে আলাদা করেন। মাতা পার্বতী যখন বাইরে এলেন, সমস্ত কিছু দেখে তিনি রেগে গেলেন। তিনি তাঁর বাচ্চাকে বাঁচতে আদেশ দেন মহাদেব-কে। এর পরেই মানুষের বদলে হস্তির মাথা দান করে পুনরায় জীবন ফিরিয়ে দেওয়া হয় ওই শিশুটির দেহে। 

<p>এর পর থেকেই গজানন নামে পরিচিতি পান তিনি। দেবাদিদেব মহাদেবের আশির্বাদে তিনি প্রথম দেবতা রূপে স্বীকৃতি পান। এই সময় যে সমস্ত দেবতারা গণেশ-কে অনেক বর দিয়েছিলেন। সেই সমস্ত গণের অধিপতি হওয়ার কারণে গণেশকে গণপতি বলা হয়।&nbsp;</p>

এর পর থেকেই গজানন নামে পরিচিতি পান তিনি। দেবাদিদেব মহাদেবের আশির্বাদে তিনি প্রথম দেবতা রূপে স্বীকৃতি পান। এই সময় যে সমস্ত দেবতারা গণেশ-কে অনেক বর দিয়েছিলেন। সেই সমস্ত গণের অধিপতি হওয়ার কারণে গণেশকে গণপতি বলা হয়। 

loader