১৬ মে থেকে জার্মানিতে ফিরছে ফুটবল,তার আগে জেনে নিন বুন্দাসলিগার সেরা ১০ লেজেন্ড কারা

First Published 6, May 2020, 4:05 PM

করোনা বিধস্ত দেশগুলির মধ্যে জার্মানি অন্যতম। সম্প্রতি কিছুটা ছন্দে ফিরেছে জার্মানি। ১৬ মে থেকে শুরু হওয়ার কথা বুন্দাস লিগাও। করোনা আতঙ্ক কাটিয়ে বিশ্বের নাম করা ফুটবল লিগগুলির মধ্যে প্রথম শুরু হতে চলেছে বুন্দাস লিগা। নতুন করে শুরুর আগে দেখে নেওয়া যাক এই ঐতিহাসিক লিগের কিংবদন্তী প্লেয়ারদের।
 

<p><strong>১.গার্ড মুলার</strong><br />
বুন্দাস লিগার লেজেন্ড বাছতে বসলে সবার আগে বলতেই হয় গার্ড মূলারের নাম। বুন্দাস লিগার ইতিহাসে এখনও পর্যন্ত সর্বোচ্চ গোলদাতার নামও গার্ড মূলার। ৪২৭টি লিগ ম্যাচে ৩৬৫ টি গোল করেছেন মূলার। ৪টি লি খেতাব জেতার পাশাপাশি পেয়েছেন ৪টি ডিএফবি পোকালস। ১৯৭০ সালে বর্ষসেরা ইউরোপিয়ান ফুটবলারের শিরোপাও পান মূলার। ক্লিনিকাল ফিনিশিংয়ের জন্য শুধু বুন্দাস লিগার ইতিহাসে নয় বিশ্ব ফুটবলেরও অন্যতম সেরা স্ট্রাইকার গার্ড মূলার। &nbsp;বিশেষত ছয় গজ বক্সের আশেপাশে তাকে সর্বকালের অন্যতম সেরা গোলদাতা হিসাবে বিবেচনা করা হয়।<br />
&nbsp;</p>

১.গার্ড মুলার
বুন্দাস লিগার লেজেন্ড বাছতে বসলে সবার আগে বলতেই হয় গার্ড মূলারের নাম। বুন্দাস লিগার ইতিহাসে এখনও পর্যন্ত সর্বোচ্চ গোলদাতার নামও গার্ড মূলার। ৪২৭টি লিগ ম্যাচে ৩৬৫ টি গোল করেছেন মূলার। ৪টি লি খেতাব জেতার পাশাপাশি পেয়েছেন ৪টি ডিএফবি পোকালস। ১৯৭০ সালে বর্ষসেরা ইউরোপিয়ান ফুটবলারের শিরোপাও পান মূলার। ক্লিনিকাল ফিনিশিংয়ের জন্য শুধু বুন্দাস লিগার ইতিহাসে নয় বিশ্ব ফুটবলেরও অন্যতম সেরা স্ট্রাইকার গার্ড মূলার।  বিশেষত ছয় গজ বক্সের আশেপাশে তাকে সর্বকালের অন্যতম সেরা গোলদাতা হিসাবে বিবেচনা করা হয়।
 

<p><strong>২. ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ার</strong><br />
জার্মান তথা বিশ্ব ফুটবলের ইতিহাসে বেকেনবাওয়ার একজন কিংবদন্তী। মিডফিল্ডার হিসেবে কেরিয়ার শুরু করলেও, পরবর্তীতে নিজেক একজন ডিফেন্ডার হিসেবে গড়ে তোলেন। বিশ্বে দ্বিতীয় ফুটবলার হিসেবে প্লেয়ার ও কোচ হিসেবে বিশ্বকাপ জেতার নজির রয়েছে বেকেনবাওয়ারের। বুন্দাসলিগায় বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে ৪টি লিগ খেতাব জেতার পাশাপাশি ১৯৭৪ থেকে ৭৬ থেকে &nbsp;পরপর তিনবার ইউরোপিয়ান কাপ জেতার নজরি রয়েছে বেকেনবাওয়ারের। এছাড়াও ১৯৬৭ সালে উয়েফা কাপও জিতেছেন ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ার।</p>

২. ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ার
জার্মান তথা বিশ্ব ফুটবলের ইতিহাসে বেকেনবাওয়ার একজন কিংবদন্তী। মিডফিল্ডার হিসেবে কেরিয়ার শুরু করলেও, পরবর্তীতে নিজেক একজন ডিফেন্ডার হিসেবে গড়ে তোলেন। বিশ্বে দ্বিতীয় ফুটবলার হিসেবে প্লেয়ার ও কোচ হিসেবে বিশ্বকাপ জেতার নজির রয়েছে বেকেনবাওয়ারের। বুন্দাসলিগায় বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে ৪টি লিগ খেতাব জেতার পাশাপাশি ১৯৭৪ থেকে ৭৬ থেকে  পরপর তিনবার ইউরোপিয়ান কাপ জেতার নজরি রয়েছে বেকেনবাওয়ারের। এছাড়াও ১৯৬৭ সালে উয়েফা কাপও জিতেছেন ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ার।

<p><strong>৩. উই সিলার</strong><br />
বুন্দাসলিগার ইতিহাসে শ্রেষ্ঠ স্ট্রাইকারদের মধ্যে অন্যতম উই সিলার। নিজের &nbsp;ক্লিনিকাল ফিনিশিং ও পাওয়ার ফুটবলের জন্য বিখ্যাত ছিল সিলার। ১৯৫৩ থেকে ১৯৭২ নিজের পুরো কেরিয়ার হ্যামবার্গার এফসিতেই খেলেছেন সিলার। বুন্দাস লিগা শুরু হয় ১৯৬৩ সালে। তার আগে থেকে শুরু করে নিজের ১৯ বছরের কেরিয়ারে ৪৭৬ ম্যাচে ৪০৪ গোল করেছেন সিলার।&nbsp;<br />
&nbsp;</p>

৩. উই সিলার
বুন্দাসলিগার ইতিহাসে শ্রেষ্ঠ স্ট্রাইকারদের মধ্যে অন্যতম উই সিলার। নিজের  ক্লিনিকাল ফিনিশিং ও পাওয়ার ফুটবলের জন্য বিখ্যাত ছিল সিলার। ১৯৫৩ থেকে ১৯৭২ নিজের পুরো কেরিয়ার হ্যামবার্গার এফসিতেই খেলেছেন সিলার। বুন্দাস লিগা শুরু হয় ১৯৬৩ সালে। তার আগে থেকে শুরু করে নিজের ১৯ বছরের কেরিয়ারে ৪৭৬ ম্যাচে ৪০৪ গোল করেছেন সিলার। 
 

<p><strong>৪.জাপ হেইনকস</strong><br />
বুন্দাস লিগার ইতিহাস তৃতীয় সর্বোচ্চ গোল দাতার নাম জাপ হেইনকস। ৩৯৪ ম্যাচ ২২০টি গোল করেছেন হেইনকস। মনখেনগ্লাব্যাচের স্বর্ণ যুগের প্লেয়ার ছিলেন তিনি। যেখানে ৪টি বুন্দাসলিগা, একটি উয়েফা কাপ ও একটি ডিএফবি পোকাল ট্রফি জিতেছেন।&nbsp;<br />
&nbsp;</p>

৪.জাপ হেইনকস
বুন্দাস লিগার ইতিহাস তৃতীয় সর্বোচ্চ গোল দাতার নাম জাপ হেইনকস। ৩৯৪ ম্যাচ ২২০টি গোল করেছেন হেইনকস। মনখেনগ্লাব্যাচের স্বর্ণ যুগের প্লেয়ার ছিলেন তিনি। যেখানে ৪টি বুন্দাসলিগা, একটি উয়েফা কাপ ও একটি ডিএফবি পোকাল ট্রফি জিতেছেন। 
 

<p><strong>৫. অলিভার কান</strong><br />
বিশ্ব ফুটবলের অন্যতম সেরা গোলরক্ষক অলিভার কান। নিজের ক্লাব কেরিয়ারে ১৯৯৪ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত বায়ার্নের হয়ে খেলেছেন কান। কান থাকাকালীন বায়ার্নের ডিফেন্স ভাঙা খুব কঠিন কাজ ছিল প্রতিপক্ষের কাছে। কেরিয়ারে মোট ৮ বার বুন্দাস লিগা, ৬ বার ডিএফবি পোকাল &nbsp;ও একবার উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছেন কান। বুন্দাস লিগার ইতিহাসে তৃতীয় সর্বাধিক ৫৫৭টি ম্যাচ খেলার রেকর্ডও রয়েছে কানের ঝুলিত।<br />
&nbsp;</p>

৫. অলিভার কান
বিশ্ব ফুটবলের অন্যতম সেরা গোলরক্ষক অলিভার কান। নিজের ক্লাব কেরিয়ারে ১৯৯৪ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত বায়ার্নের হয়ে খেলেছেন কান। কান থাকাকালীন বায়ার্নের ডিফেন্স ভাঙা খুব কঠিন কাজ ছিল প্রতিপক্ষের কাছে। কেরিয়ারে মোট ৮ বার বুন্দাস লিগা, ৬ বার ডিএফবি পোকাল  ও একবার উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছেন কান। বুন্দাস লিগার ইতিহাসে তৃতীয় সর্বাধিক ৫৫৭টি ম্যাচ খেলার রেকর্ডও রয়েছে কানের ঝুলিত।
 

<p><strong>৬. লথার ম্যাথিউস</strong><br />
জার্মান ফুটবল তথা বিশ্ব ফুটবলের ইতিহাসে একজন বহুমুখী প্রতিভা সম্পন্ন প্লেয়ার হিসেবে বিবেচিত হন লথার ম্যাথিউস। তার পাসিং,পজিসন নেওয়ার ক্ষমতা, সময় উপযোগী ট্যাকেল, পাওয়ারফুল শুটিংয়ের জন্য বিখ্যাত ছিলেন ম্যাথিউস। &nbsp;১৯৯০ সালে তাঁকে ইউরোপীয় ফুটবলার নির্বাচিত করা হয়। ১৯৯১ সালে ফিফার বর্ষসেরা প্লেয়ার হিসেবে নির্বাচিত হন লথার ম্য়াথিউস। বুন্দাসলিগায় বরুশিয়া &nbsp;মনখেনগ্লাব্যাচের ও বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে খেলেছেন ম্যাথিউস। ৭টি লিগ টাইটেল জেতার পাশাপাশি ৩টি ডিএফবি পোকাল টাইটেলও জিতেছেন তিনি। এছাড়া আন্তর্জাতিক কেরিয়ারে বিশ্বকাপ জয় সহ একাধিক সাফল্য রয়েছে লথার ম্যাথউসের।</p>

৬. লথার ম্যাথিউস
জার্মান ফুটবল তথা বিশ্ব ফুটবলের ইতিহাসে একজন বহুমুখী প্রতিভা সম্পন্ন প্লেয়ার হিসেবে বিবেচিত হন লথার ম্যাথিউস। তার পাসিং,পজিসন নেওয়ার ক্ষমতা, সময় উপযোগী ট্যাকেল, পাওয়ারফুল শুটিংয়ের জন্য বিখ্যাত ছিলেন ম্যাথিউস।  ১৯৯০ সালে তাঁকে ইউরোপীয় ফুটবলার নির্বাচিত করা হয়। ১৯৯১ সালে ফিফার বর্ষসেরা প্লেয়ার হিসেবে নির্বাচিত হন লথার ম্য়াথিউস। বুন্দাসলিগায় বরুশিয়া  মনখেনগ্লাব্যাচের ও বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে খেলেছেন ম্যাথিউস। ৭টি লিগ টাইটেল জেতার পাশাপাশি ৩টি ডিএফবি পোকাল টাইটেলও জিতেছেন তিনি। এছাড়া আন্তর্জাতিক কেরিয়ারে বিশ্বকাপ জয় সহ একাধিক সাফল্য রয়েছে লথার ম্যাথউসের।

<p><strong>৭.সেপ মেইয়ের</strong><br />
১৯৭০ সালে বাায়ার্ন মিউনিখের কিংবদন্তী দলের সদস্য ছিলেন সেপ মেইয়ের। যেই দলের সদস্য ছিলেন বেকেনবাওয়ার, গার্ড মূলাররা। পরপর তিনটি ইউরোপিয়ান কাপ জেতার নজির রয়েছে মেইয়ের। ১৯৬৬ থেকে ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত বায়ার্নের হয়ে ৪৪২টি ম্যাচ খেলেছেন মেইয়ের। যা এক রেকর্ড। এছাড়া ৫টি বুন্দাসলিগা ট্রফি জয় সহ আন্তর্জাতিক কেরিয়ারে ১৯৭৪ সালে বিশ্বকাপও জিতেছেন মেইয়ের।<br />
&nbsp;</p>

৭.সেপ মেইয়ের
১৯৭০ সালে বাায়ার্ন মিউনিখের কিংবদন্তী দলের সদস্য ছিলেন সেপ মেইয়ের। যেই দলের সদস্য ছিলেন বেকেনবাওয়ার, গার্ড মূলাররা। পরপর তিনটি ইউরোপিয়ান কাপ জেতার নজির রয়েছে মেইয়ের। ১৯৬৬ থেকে ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত বায়ার্নের হয়ে ৪৪২টি ম্যাচ খেলেছেন মেইয়ের। যা এক রেকর্ড। এছাড়া ৫টি বুন্দাসলিগা ট্রফি জয় সহ আন্তর্জাতিক কেরিয়ারে ১৯৭৪ সালে বিশ্বকাপও জিতেছেন মেইয়ের।
 

<p><strong>৮. কার্ল হেইনজ</strong><br />
বুন্দাস লিগার ইতিহাসে অপর শ্রেষ্ঠ প্লেয়ারের নাম হল কার্ল হেইনজ। ১৯৭৪ সালে বায়ার্নে যোগ দেন হেইনজ। ১৯৮০, ৮১ ও ৮৪ সালে বুন্দাস লিগার সর্বোচ্চ গোল দাতার শিরোপা পান তিনি। গোল করেন ২৬, ২৯ ও ২৬টি। এছাড়া বায়ার্নের হয়ে ইন্টারকন্টিনেন্টাল কাপ, ইউরোপিয়ান কাপ, ২টি বুন্দাস লিগা ট্রফি ও একটি ডোমেস্টিক কাপ জিতেছেন হেইনজ। ২ বার ইউরোপের শেরা প্লেয়ারের শিরোপাও পেয়েছেন তিনি।<br />
&nbsp;</p>

৮. কার্ল হেইনজ
বুন্দাস লিগার ইতিহাসে অপর শ্রেষ্ঠ প্লেয়ারের নাম হল কার্ল হেইনজ। ১৯৭৪ সালে বায়ার্নে যোগ দেন হেইনজ। ১৯৮০, ৮১ ও ৮৪ সালে বুন্দাস লিগার সর্বোচ্চ গোল দাতার শিরোপা পান তিনি। গোল করেন ২৬, ২৯ ও ২৬টি। এছাড়া বায়ার্নের হয়ে ইন্টারকন্টিনেন্টাল কাপ, ইউরোপিয়ান কাপ, ২টি বুন্দাস লিগা ট্রফি ও একটি ডোমেস্টিক কাপ জিতেছেন হেইনজ। ২ বার ইউরোপের শেরা প্লেয়ারের শিরোপাও পেয়েছেন তিনি।
 

<p><strong>৯. ম্যানুয়েল নয়ার</strong><br />
ফুটবলের ইতিহাসে অন্যতম সেরা গোলরক্ষক জার্মানির ম্যানুয়েল নয়ার। গোল ছেড়ে বেরিয়ে বল ক্লিয়ারের দক্ষতার জন্য তাকে সুইপার কিপারও বলা হয়। ২০০৬ সালে সালকেতে যোগ দেন নয়ার। ২০১১ সালে যোগ দেন বায়ার্ন মিউনিকে। তারপর থেকে ৭টি বুন্দাস লিগা টাইটেল, একটি চ্যাম্পিয়নস লিগ ছাড়াও অনেক শিরোপা জিতেছেন। ২০১৪ সালে ফিফার বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য় ছিলেন নয়ার। বিশ্বকাপে গোল্ডেন গ্লাভসও পেয়েছেন তিনি।</p>

৯. ম্যানুয়েল নয়ার
ফুটবলের ইতিহাসে অন্যতম সেরা গোলরক্ষক জার্মানির ম্যানুয়েল নয়ার। গোল ছেড়ে বেরিয়ে বল ক্লিয়ারের দক্ষতার জন্য তাকে সুইপার কিপারও বলা হয়। ২০০৬ সালে সালকেতে যোগ দেন নয়ার। ২০১১ সালে যোগ দেন বায়ার্ন মিউনিকে। তারপর থেকে ৭টি বুন্দাস লিগা টাইটেল, একটি চ্যাম্পিয়নস লিগ ছাড়াও অনেক শিরোপা জিতেছেন। ২০১৪ সালে ফিফার বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য় ছিলেন নয়ার। বিশ্বকাপে গোল্ডেন গ্লাভসও পেয়েছেন তিনি।

<p><strong>১০. মিরোস্লাভ ক্লোসে</strong><br />
জার্মানি ফুটবল ইতিহাসে অন্যতম সেরা প্লেয়ার মিরোস্লাভ ক্লোসে। জার্মান জাতীয় দলের সর্বকালের শীর্ষ স্কোরার তিনি। বিশ্বকাপের ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোলদাতা ক্লোসে। এফসি &nbsp;হামবুর্গের কেরিয়ার শুরু করে তিনি কায়সারস্লাউটার্ন, ওয়ার্ডার ব্রেমেন এবং বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে বুন্দেসলিগায় খেলেছেন। তিনি বায়ার্ন এবং ওয়ার্ডার ব্রেমেনের কাপ প্রতিযোগিতা সহ বায়ার্নের সাথে দুটি লিগ শিরোপা জিতেছেন।&nbsp;<br />
&nbsp;</p>

১০. মিরোস্লাভ ক্লোসে
জার্মানি ফুটবল ইতিহাসে অন্যতম সেরা প্লেয়ার মিরোস্লাভ ক্লোসে। জার্মান জাতীয় দলের সর্বকালের শীর্ষ স্কোরার তিনি। বিশ্বকাপের ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোলদাতা ক্লোসে। এফসি  হামবুর্গের কেরিয়ার শুরু করে তিনি কায়সারস্লাউটার্ন, ওয়ার্ডার ব্রেমেন এবং বায়ার্ন মিউনিখের হয়ে বুন্দেসলিগায় খেলেছেন। তিনি বায়ার্ন এবং ওয়ার্ডার ব্রেমেনের কাপ প্রতিযোগিতা সহ বায়ার্নের সাথে দুটি লিগ শিরোপা জিতেছেন। 
 

loader