করোনার উৎস সন্ধানে বাদুড় খুঁজছেন থাই বিজ্ঞানীরা, পরীক্ষার জন্য তৈরি কৃত্রিম গুহা

First Published 13, Aug 2020, 7:55 PM

প্রাথমিকভাবে বিজ্ঞানীরা মনে করেছিলেন বাদুড়ের থেকেই মানুষের দেহে ছড়িয়ে ছিল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। আর এই সংক্রমণ প্রথম দেখতে পাওয়া গিয়েছিলন চিনের উহান প্রদেশে। তারপর থেকে গত সাড়ে সাত মাস ধরে গোটা বিশ্ব ত্রস্ত হয়ে রয়েছে  করোনাভাইরাসের সংক্রমণের দাপটে। এই পবিশ্বের অধিকাংশ দেশই সংক্রমণের জেরে কমবেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে করোনাভাইরাসর উৎস সন্ধানে অভিনব উদ্যোগ নিয়েছেন থাইল্যান্ডের বিজ্ঞানীরা। তাঁরা গ্রামগঞ্জে ঘুরে বেড়াচ্ছেন বাদুড়ের সন্ধানে। 

<p><strong>জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী বাদুড়তেই করোনা ভাইরাসের উৎস হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। বাদুড় থেকে ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাসটি ২০ মিলিয়ন মানুষকে আক্রান্ত করেছে। এখনও পর্যন্ত ৭ লক্ষ ৪৮ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। </strong><br />
 </p>

জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী বাদুড়তেই করোনা ভাইরাসের উৎস হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। বাদুড় থেকে ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাসটি ২০ মিলিয়ন মানুষকে আক্রান্ত করেছে। এখনও পর্যন্ত ৭ লক্ষ ৪৮ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। 
 

<p><strong>আর মারাত্ম ছোয়াছে করোনা ভাইরাসের উৎসের খোঁজে নেমেছেন চিনের প্রতিবেশি দেশ থাইল্যান্ড। গবেষণার কারণে তাঁরা ঘুরে বেড়াচ্ছেন গ্রামাঞ্চলে বাদুড়ে গুহাগুলিতে।</strong></p>

আর মারাত্ম ছোয়াছে করোনা ভাইরাসের উৎসের খোঁজে নেমেছেন চিনের প্রতিবেশি দেশ থাইল্যান্ড। গবেষণার কারণে তাঁরা ঘুরে বেড়াচ্ছেন গ্রামাঞ্চলে বাদুড়ে গুহাগুলিতে।

<p><strong>প্রাথমিক গবেষণার পর বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন থাইল্যান্ডে ১৯ প্রজাতির বাদুড় রয়েছে। আর সেই ১৯টি প্রজাতির বাদুড়কে নিয়েই পরীক্ষা শুরু করেছেন তাঁরা। </strong></p>

<p> </p>

প্রাথমিক গবেষণার পর বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন থাইল্যান্ডে ১৯ প্রজাতির বাদুড় রয়েছে। আর সেই ১৯টি প্রজাতির বাদুড়কে নিয়েই পরীক্ষা শুরু করেছেন তাঁরা। 

 

<p><strong>বাদুড় সংরক্ষণের জন্য থাইল্যান্ডের পশ্চিমে কাঞ্চনবুরিতে সাই ইয়োক জাতীয় উদ্যোনে একটি পাহাড়ে তিনটি পৃথক গুহা নির্মাণ করা হয়েছে। </strong><br />
 </p>

বাদুড় সংরক্ষণের জন্য থাইল্যান্ডের পশ্চিমে কাঞ্চনবুরিতে সাই ইয়োক জাতীয় উদ্যোনে একটি পাহাড়ে তিনটি পৃথক গুহা নির্মাণ করা হয়েছে। 
 

<p><strong>আর সেই গুহাই ইতিমধ্যেই প্রায় ২০০ বাদুড়কে রাখা হয়েছে। সেই বাদুড়গুলি নিয়ে শুরু হয়েছে পরীক্ষা। পাশাপাশি আরও বাদুড় ধরার তোড়জোড় শুরু হয়েছে বলেও জানিয়েছেন গবেষণার সঙ্গে যুক্ত এক ব্যক্তি। </strong><br />
 </p>

আর সেই গুহাই ইতিমধ্যেই প্রায় ২০০ বাদুড়কে রাখা হয়েছে। সেই বাদুড়গুলি নিয়ে শুরু হয়েছে পরীক্ষা। পাশাপাশি আরও বাদুড় ধরার তোড়জোড় শুরু হয়েছে বলেও জানিয়েছেন গবেষণার সঙ্গে যুক্ত এক ব্যক্তি। 
 

<p><strong>থাই বিজ্ঞানীদের এই কাজে সাহায্য করছে রেড ক্রস। আর এই সংস্থার সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞরা বাদুড়ের লালা আর রক্তের নমুনা সংগ্রহ করেছিল। সংগ্রহ করা হয়েছিল বাদুড়ের মলের নমুনাও। </strong><br />
<br />
 </p>

থাই বিজ্ঞানীদের এই কাজে সাহায্য করছে রেড ক্রস। আর এই সংস্থার সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞরা বাদুড়ের লালা আর রক্তের নমুনা সংগ্রহ করেছিল। সংগ্রহ করা হয়েছিল বাদুড়ের মলের নমুনাও। 

 

<p><strong>বিশেষজ্ঞরা শুধুমাত্র ঘোড়ামুখো বাদুড়ই নয়, আরও বিভিন্ন প্রজাতির বাদুড়ের নমুনা সংগ্রহ করেছিল। মূল উদ্দেশ্যই পশু বহনকারী রোগ জীবাণু সম্পর্কে আরও তথ্য অনুসন্ধান করা। </strong></p>

বিশেষজ্ঞরা শুধুমাত্র ঘোড়ামুখো বাদুড়ই নয়, আরও বিভিন্ন প্রজাতির বাদুড়ের নমুনা সংগ্রহ করেছিল। মূল উদ্দেশ্যই পশু বহনকারী রোগ জীবাণু সম্পর্কে আরও তথ্য অনুসন্ধান করা। 

<p><strong>এই দলের নেতৃত্বে ছিলেন সুপাপর্ন ওয়াচারাপ্লুসাদি, যিনি ২০ বছরেরও বেশি সময় ধরে বাদুড় নিয়ে গবেষণা করছেন। বাদুড় থেকে কী ভাবে রোগ ছড়িয়ে পড়ে তাও খতিয়ে দেখেন তিনি। </strong><br />
 </p>

এই দলের নেতৃত্বে ছিলেন সুপাপর্ন ওয়াচারাপ্লুসাদি, যিনি ২০ বছরেরও বেশি সময় ধরে বাদুড় নিয়ে গবেষণা করছেন। বাদুড় থেকে কী ভাবে রোগ ছড়িয়ে পড়ে তাও খতিয়ে দেখেন তিনি। 
 

<p><br />
<strong>তিনি বিশ্বাস করেন যে তাঁরা থাইল্যান্ডের বাদুড়গুলি থেকে করোনাভাইরাস আবিষ্কার করতে সক্ষম হবেন। উৎসের সন্ধান পেলে গবেষণার কাজ অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে বলে মনে করছেন থাই বিজ্ঞানীরা। </strong></p>


তিনি বিশ্বাস করেন যে তাঁরা থাইল্যান্ডের বাদুড়গুলি থেকে করোনাভাইরাস আবিষ্কার করতে সক্ষম হবেন। উৎসের সন্ধান পেলে গবেষণার কাজ অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে বলে মনে করছেন থাই বিজ্ঞানীরা। 

<p><strong>থাই বিজ্ঞানীদের মতে এই মহামারী কোনও সীমান্ত মানে না। তাই রোগটি বাদুড়ের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। কারণ বাদুড় এক জায়গা থেকে অন্য যায়গায় যেতে সক্ষম। </strong><br />
 </p>

থাই বিজ্ঞানীদের মতে এই মহামারী কোনও সীমান্ত মানে না। তাই রোগটি বাদুড়ের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। কারণ বাদুড় এক জায়গা থেকে অন্য যায়গায় যেতে সক্ষম। 
 

loader