পরিযায়ীদের নিয়ে আতঙ্ক নয়, পাখিদের আগমনে খুশির হাওয়া রায়গঞ্জে

First Published 2, Jun 2020, 8:34 PM

করোনা আতঙ্কে ভিড় বাড়ছে পরিযায়ীদের। শ্রমিক নয়, দূর দূরান্ত থেকে পাখিরা আসতে শুরু করেছে রায়গঞ্জের কুলিক পক্ষীবনিবাসে। বনদপ্তরের আশা, অনুকূল আবহাওয়ার জন্য এবার রেকর্ড সংখ্যক পাখি আসবে। উচ্ছ্বসিত পরিবেশপ্রেমীরা ও সাধারণ মানুষও।
 

<p>করোনা আতঙ্কে ঘরবন্দি মানুষ। লকডাউনের জেরে দূষণের মাত্র কমেছে অনেকটাই। বর্ষা আসতেও আর খুব বেশি দূরে নেই। প্রকৃতি যেন আপন রূপে ধরা দিয়েছে। <br />
 </p>

করোনা আতঙ্কে ঘরবন্দি মানুষ। লকডাউনের জেরে দূষণের মাত্র কমেছে অনেকটাই। বর্ষা আসতেও আর খুব বেশি দূরে নেই। প্রকৃতি যেন আপন রূপে ধরা দিয়েছে। 
 

<p>রায়গঞ্জের শহরের একেবারেই লাগোয়া কুলিক পক্ষীনিবাস। তিনটি মৌজা মিলিয়ে তিনশো একরেরও বেশি জমিতে পাখিদের অবাধ বিচরণ। এই কুলিক পক্ষীনিবাস এশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম।<br />
 </p>

রায়গঞ্জের শহরের একেবারেই লাগোয়া কুলিক পক্ষীনিবাস। তিনটি মৌজা মিলিয়ে তিনশো একরেরও বেশি জমিতে পাখিদের অবাধ বিচরণ। এই কুলিক পক্ষীনিবাস এশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম।
 

<p>প্রতিবছর বর্ষার সময়ে অর্থাৎ জুন-জুলাই মাস নাগাদ উত্তর-পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশ থেকে পরিযায়ী পাখির দলে চলে আসে রায়গঞ্জে, কুলিক পক্ষীনিবাসে। </p>

প্রতিবছর বর্ষার সময়ে অর্থাৎ জুন-জুলাই মাস নাগাদ উত্তর-পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশ থেকে পরিযায়ী পাখির দলে চলে আসে রায়গঞ্জে, কুলিক পক্ষীনিবাসে। 

<p>সেখানে ডিম পাড়ে পরিযায়ী পাখিরা। ছানাদের যতদিন না উড়তে শিখছে, ততদিন পর্যন্ত কুলিক পক্ষীনিবাসে থাকে মা। ডিসেম্বর মাসে ফের পাখিরা ফিরে যায়।<br />
 </p>

সেখানে ডিম পাড়ে পরিযায়ী পাখিরা। ছানাদের যতদিন না উড়তে শিখছে, ততদিন পর্যন্ত কুলিক পক্ষীনিবাসে থাকে মা। ডিসেম্বর মাসে ফের পাখিরা ফিরে যায়।
 

<p>২০১১ সালে কুলিকে পরিযায়ী পাখির সংখ্যা প্রায় অর্ধেক হয়ে গিয়েছিল। তারপর থেকে প্রতিবছর সংখ্যা বাড়ছিল। আর এবার লকডাউনের বাজারে সময়ের অনেক আগেই পাখির কলবর শোনা যাচ্ছে। খুশি সকলেই।   <br />
 </p>

২০১১ সালে কুলিকে পরিযায়ী পাখির সংখ্যা প্রায় অর্ধেক হয়ে গিয়েছিল। তারপর থেকে প্রতিবছর সংখ্যা বাড়ছিল। আর এবার লকডাউনের বাজারে সময়ের অনেক আগেই পাখির কলবর শোনা যাচ্ছে। খুশি সকলেই।   
 

loader