দিল্লি দখলে মরিয়া বিজেপি নেতারা অরবিন্গ কেজরিওয়ালকে সন্ত্রাসবাদী বলেও আক্রমণ করতে পিছপা হননি। কিন্তু এক্জিট পোল- এর সমীক্ষা যদি মিলে যায়, তাহলে ভোট বাক্সেই বিজেপি-র অপমানের জবাব দিতে চলেছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী। কারণ সর্বভারতীয় প্রায় সবকটি সংবাদমাধ্যমের এক্সিট পোল-এই দাবি, বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে দিল্লিতে প্রত্যাবর্তন করতে চলেছে আপ সরকার। 

শনিবারই দিল্লির ৭০টি বিধানসভা আসনের জন্য নির্বাচন হয়েছে। বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত ভোটগ্রহণের ভিত্তিতে এক্সিট পোল-এ সম্ভাব্য ফলাফল তুলে ধরেছে সংবাদমাধ্যমগুলি। টাইমস নাউ এবং আপিএসওএস- এর করা সমীক্ষা অনুযায়ী দিল্লিতে অন্তত ৪৪টি আসনে জয়ী হতে চলেছে আপ। বিজেপি পেতে পারে ২৬টি আসন। তবে সমীক্ষা অনুযায়ী, দিল্লিতে ধরাশায়ী হতে চলেছে কংগ্রেস। 

ইন্ডিয়া টুডে এবং অ্যাক্সিস মাই ইন্ডিয়া-র সমীক্ষা অনুযায়ী, আপ-এর ঝুলিতে আসতে পারে ৫৯ থেকে ৬৮টি আসন। বিজেপি পেতে পারে ২ থেকে ১১টি আসন। সেক্ষেত্রে ফের একবার ২০১৫ সালের বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফলেরই পুনরাবৃত্তি হতে চলেছে রাজধানীতে। 

এবিপি নিউজ- সি ভোটার সমীক্ষাও অনেকটা একই ইঙ্গিত দিচ্ছে। এই সমীক্ষায় দাবি করা হয়েছে, দিল্লিতে আপ পেতে পারে ৪৯ থেকে ৬৩টি আসন। বিজেপি পেতে পারে ৫ থেকে ৯টি আসন। কংগ্রেসের দখলে আসতে পারে সর্বাধিক ৪টি আসন। 

রিপাব্লিক টিভি- জন কি বাত-এর সমীক্ষা বলছে, ৭০টি আসনের মধ্যে ৪৮ থেকে ৬১টি আসনেই জয়ের সম্ভাবনা রয়েছে আপ-এর। বিজেপি-র দখলে আসতে পারে ৯ থেকে ২১টি আসন। 

অর্থাৎ কেন্দ্রে ক্ষমতায় থাকলেও দিল্লি বিধানসভা দখলের স্বপ্ন যে নরেন্দ্র মোদী- অমিত শাহ জুটির এবারও অপূর্ণই থেকে যাবে, সে বিষয়ে নিঃসংশয় প্রতিটি এক্সিট পোল। শেষ পর্যন্ত অন্যরকম কিছু হলে আলাদা কথা। তা নাহলে সন্ত্রাসবাদী বলে অপমানের জবাবটা মোদী- শাহদের বেশ জোরালো ভাবেই দিতে চলেছেন আপ প্রধান।