দূষণমুক্ত পরিবেশ তৈরি করতে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে ভারতীয় রেল। ইন্ডিয়ান রেলওয়েসের মূল লক্ষ্য ২০৩০ সালের আগে 'নেট জিরো কার্বন নির্গমণকারী' হওয়া। ২০১৪ সাল থেকেই এই লক্ষ্যে কাজ শুরু করেছিল ভারতীয় রেল। বর্তামানে কাজের পরিধি আরও ১০ গুণ বেড়েছে।

দুষণমুক্ত রেলপথে তৈরির লক্ষ্যে গোটা দেশেই ব্রডগেজে রূপান্তরিত করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। ২০২৩ সালের মধ্যে পরিকল্পনা বাস্তবায়িত করার লক্ষ্যে এগিয়ে চলেছে ভারতীয় রেল। ব্রডগেট রুটের ১০০ শতাংশ বিদ্যুতায়েনের কাজও শুরু হয়েছে। 

ভারতীয় রেলের দূষণমুক্ত আধুনিকীকরণের দিকে একাধিক পদক্ষেপঃ
পরিবেশ রক্ষার জন্য ভারতীয় রেলওয়ে হেড-অন-জেনারেশন সিস্টেম, বায়ো-টয়লেটস ও এলইডি লাইট স্বয়ংক্রিয় কোচ, ওয়াশিং প্ল্যান্ট, জল সংরক্ষণ ও সৌর চালিত স্টেশন নিয়ে এসেছে। 
ফ্রেট করিডোরগুলি গ্রিন ট্রান্সপোর্টেশন নেটওয়ার্ক হিসেবে তৈরি করা হয়েছে। 
২০১৬ জুলাইয়ে ভারতীয় রেলপথ ভারতীয় রেল নেটওয়ার্কের দূষণমুক্ত করতে কনফেডারেশন অব ইন্ডিয়ার সঙ্গে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছিল। যার মধ্যে এখনও পর্যন্ত ৩৯টি ওয়ার্কশপ, ৮টি লোকো শেড, ৭টি প্রোডাকশন ইউনিট ও একটি সৌর ডিপো গ্রিনকো সার্টিফিকেড পেয়েছে। 
এছাড়াও ১৯টি স্টেশন গ্রিন স্টেশনের মর্যাদা পেয়েছে। 
রেল মন্ত্রকের মতে জাতীয় পরবহনকারী জলবায়ু পরিবর্তন বৈশিষ্ট্যগুলির সঙ্গে নিজস্ব ঝুঁকি মূল্যায়নের পাশাপাশি দুর্যোদ মোকাবিলা প্রোটোকলও নিয়ে এসেছে।