বিহারে এনআরসি হবে না। আগেই স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার। দেশজুড়ে সংশোধিত নাগরকিত্ব আইনের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন তিনি।

বিহার বিধানসভার বক্তব্য রাখতে গিয়ে নীতিশ বলেন দেশজুড়ে এনআরসি লাগু করা অপ্রয়োজনীয়। বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা তেজস্বী যাদব নীতিশের কাছে এনআরসি নিয়ে  তাঁর মতামত জানতে চান। কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের জোটসঙ্গী হলেও এই বিষয়ে তাঁর যে সমর্থন নেই সেবিষয়টি এদিন বিধানসভায় স্পষ্ট করে দেন নীতিশ।

আরও পড়ুন : অস্ট্রেলিয়ার দাবানল কেড়েছে কোটি কোটি প্রাণ, বন্যপ্রাণীদের বাঁচাতে আকাশপথে ফেলা হল ২,২০০ কেজি সব্জি 

এনআরসি, সিএএ ও এনপিআরেরর বিরোধিতায় উত্তাল হয়ে রয়েছে সারা দেশ। সাধারণ মানুষের মত পথে নেমেছে বিরোধী দলগুলিও। এই আন্দলনের জেরে যথেষ্ট বেহাল কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। যদিও রাজীব গান্ধী  সরকারের আমলে এনআরসি নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল বলে মনে করিয়ে দেন নীতিশ কুমার। 

দেখুন ভিডিও: হিরে বাঁধানো প্রধানমন্ত্রী, ডায়মন্ড অফ ইন্ডিয়ার ম্যাপে জ্বলজ্বল করছেন মোদী

বিহারে এনআরসির কোনও প্রশ্নই নেই বলে বিধানসভায় স্পষ্ট করে দেন। কেবমলমাত্র এসমের প্রেক্ষিতে এই আলোচনা হয়েছে এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই নিয়ে অবস্থান স্পষ্ট করেছেন বলে জানান তিনি। 

জেডিইউ-এর সহসভাপতি তথা ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোর আগেই নাগরিকত্ব আইন নিয়ে প্রকাশ্যে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করেছেন। নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের সমর্থনে নীতিশের দলের অন্দরেই ক্ষোভ তৈরি হয়েছিল। এই অবস্থায় এনআরসি ইস্যুতে নীতিশ কিমারের এহেন অবস্থান রাজনৈতিকভাবে তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল। আর জেডিইউ-এর মতো শরিকের এহেন অবস্থানে মোদী-শাহদের চাপ আরও বাড়ল বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।