বন্দুকের জন্য লাইসেন্স দরকার? এর জন্য লাগাতে হবে ১০টি চারাগাছ। কমপক্ষে এক মাসের জন্য তার লালন-পালন করতে হবে। সেই গাছের সঙ্গে সেলফি তুলে বন্দুকের লাইসেন্সের আবেদনপত্রের সঙ্গে পাঠালে তবেই মিলবে লাইসেন্স।

সম্প্রতি মধ্যপ্রদেশের গোয়ালিয়রে সম্প্রতি চালু করা হল এমনই অদ্ভুত নিয়ম। নিয়মটি আপাতদৃষ্টে অদ্ভুত মনে হলেও এটি আদতে যে এক অভিনব উদ্যোগ সে-কথা বলাই বাহুল্য। কিন্তু কেন চালু করা হল এই নিয়ম? গোয়ালিয়রের জেলা শাসক অনুরাগ চৌধুরী জানিয়েছেন, সম্প্রতি গোটা মধ্যপ্রদেশ জুড়ে যে পরিমাণ দূষণ বাড়ছে তাতে করে পরিবেশকে টিকিয়ে রাখতে হলে একমাত্র প্রয়োজন বৃক্ষরোপণ। প্রাকৃতিক পরিবেশে সবুজায়ন ঘটাতেই এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

মোদীর মন্ত্রীসভায় শিক্ষা দফতর সামলাচ্ছেন ভুয়ো ডিগ্রিধারী নেতা, বিতর্ক তুঙ্গে

ভারতে প্রথম কোনও ঐতিহাসিক স্থাপত্যে তৈরি হবে ব্রেস্টফিডিং রুম

তিনি আরও জানান যে, প্রতি মাসে গোয়ালিয়রে ২০,০০০-এরও বেশি বন্দুকের আবেদন জমা পড়ে, যার মধ্যে ২০০-টিরও বেশি আবেদন থাকে নতুন লাইসেন্সের জন্য। গোয়ালিয়রের যুব সম্প্রদায়ের মধ্যে নিজের কাছে বন্দুক রাখাটা যেন একটা প্রথা হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর এই পরিস্থিতিতে গোয়ালিয়রে দূষণের মাত্রাও সবথেকে বেশি বলে জানিয়েছে ওয়ার্ল্ড হেল্থ অর্গানাইজেশন। তাই অবিলম্বে পরিস্থিতির পরিবর্তন ঘটাতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। তাই আর দেরি না করে বর্ষা শুরুর আগেই এই নিয়ম চালু করা হবে। তবে নতুন লাইসেন্স-এর পাশাপাশি পুরনো লাইসেন্স-এর পুনর্নবীকরণের ক্ষেত্রেও এই নিয়ম লাগু হবে বলে জানা গিয়েছে।