গত বছরের শেষে চিনের উহানে প্রথম করোনা সংক্রমণের ঘটনা ঘটে। এতদিন এমনটাই জেনে এসেছিল গোটা বিশ্ব। তবে সেই দাবি নিয়ে এবার প্রশ্ন তুলে দিল হার্ভার্ড মেডিক্যাল স্কুল। বরং হার্ভার্ডের গবেষকরা জানাচ্ছেন বর্তমানে গোটা বিশ্বে অতিমারীর পর্যায়ে পৌঁছে যাওয়া করোনাভাইরাসের সংক্রমণ চিনে ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে নয় বরং শুরু হয়েছিল অগস্ট মাসে।

ওই সময় উহানের বাসিন্দাদের হাসপাতালে যাতায়াতের উপগ্রহ চিত্রের পাশাপাশি ইন্টারনেট থেকে পাওয়া শহরহবাসীর তথ্যের ভিত্তিতে এই গবেষণা চালানো হয়েছে বলে দাবি করছেন হার্ভার্ড মেডিক্যাল স্কুলের গবেষকেরা। যদিও রিপোর্টটি ‘হাস্যকর’ বলে খারিজ করে দিয়েছে চিন।

উহানের হাসপাতালের পার্কিং লটের ছবি ব্যবহার করা হয়েছে এই সমীক্ষায়। তাতে দেখা গিয়েছে, খাতায়-কলমে গতবছরের শেষ থেকে করোনা মহামারী শুরু হলেও তার আগে থেকেই উপসর্গ নিয়ে সার্চ ইঞ্জিনগুলিতে অনুসন্ধান শুরু করেছিল উহানের বাসিন্দারা। হাসপাতালে রোগীর সংখ্যাও ক্রমে বাড়তে থাকে। 

লকডাউন সাপে বর হল, আম আদমির খিদে মিটিয়ে গত ৮ দশকে প্রথমবার রেকর্ড বিক্রি ভারতীয় বিস্কুট সংস্থার

ইউরোপ ছাড়া বাকি বিশ্বের পরিস্থিতি উদ্বেগের, এবার করোনার মূল কেন্দ্র হচ্ছে দক্ষিণ এশিয়া

অ্যাসিম্পটম্যাটিকদের থেকে করোনা ছড়ানোর নজির বিরল, সুর পাল্টে এবার দাবি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার

হার্ভার্ড মেডিক্যাল স্কুলের গবেষকরা জানিয়েছেন, গত অগস্ট থেকে ডায়েরিয়া ও কাশির উপসর্গ নিয়ে অনেকেই সার্চ করতে থাকে, যা অন্য কোনও ফ্লু-র সময় দেখা যায়নি। হাসপাতালের কার পার্কে গাড়ির সংখ্যাও বেড়ে যায়।

বিষয়গুলি থেকে সরাসরি কিছু প্রমাণ না হলেও করোনাভাইরাসের সঙ্গে এর যোগ রয়েছে বলে মনে করছেন গবেষকরা। গবেষকদের দাবি, উহানের কাঁচাবাজার থেকে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার প্রচলিত ঘটনার অনেক আগেই দক্ষিণ চিনে এই ভাইরাস ভালো রকম সংক্রমিত হতে শুরু করেছিল।

যদিও গবেষকরা নিশ্চিত নন যে এই তথ্যগুলি করোনাভাইরাসের সঙ্গে যুক্ত কিনা। অগস্ট মাসে হাসপাতালে অধিক গাড়ির পার্কিং ও সার্চে করোনার উপসর্গ উঠে আসার জন্যই তাঁদের এরূপ মনে হচ্ছে। কোভিড-১৯ ভাইরাসের জন্ম উহানের গবেষণাগারে বলে যে দাবি করা হচ্ছিল, হার্ভার্ডের এই গবেষণা অবশ্য তা খারিজ করে দিয়েছে। তাঁরা এও বলছেন, প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী ভাইরাস প্রাকৃতিক ভাবেই উহান প্রদেশে ছড়িয়ে পড়েছিল। 

এদিকে অগস্ট মাসে করোনা ছড়ানোর  হার্ভার্ডের এই দাবিকে হাস্যকর বলে উড়িয়ে দিয়েছে চিন। চিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রকের মুখপাত্র হুয়া চুনিয়িং বলেন, ‘উপগ্রহ চিত্রের তথ্যের ভিত্তিতে মনগড়া এই তত্ত্বের আগাগোড়াই ভিত্তিহীন ও চূড়ান্ত হাস্যকর, হাসপাতালের ভিড় থেকে সংক্রমণের পথ মাপার চেষ্টা খুবই হাস্যকর।’