অসিত দাস, কলকাতাঃ  জামাইষষ্ঠীর দিনে বাঙালির সুজলাসুফলা গৃহে জামাইদের যে আদরযত্ন হবে এতে আশ্চর্যের কিছু নেই। নাদাপেটা জামাইদের নান্দনিক ভুবনে আগেকার দিনে শ্বশুরমশাইরা দরাজ হাতে খরচা করতেন। তখন তো আবার একটি দুটি নয়, পাঁচছটি জামাইকে সামলাতে হত শাশুড়িমায়েদের। ছোটটি যদি অভিমানী হয়, মেজটি তবে নির্ঘাত গোঁয়ার। সব দিক সামলানো কী চাট্টিখানি কথা! শ্যালিকারা হাতপাখা নিয়ে আর কপট ভ্রুভঙ্গি দিয়ে ভাগ্যিস ম্যানেজ করত বাবাজীবনদের ! না হলে কী যে অনাসৃষ্টি কাণ্ড হত কে জানে।

জ্যৈষ্ঠ মাসের শুক্লপক্ষের ষষ্ঠীতে প্রতি ঘরে ঘরে যেন উৎসবের আমেজ। প্রাক বর্ষার ভ্যাপসা গরমকে তুচ্ছ করে লোডশেডিংয়ের চোখরাঙানিকে থোড়াই কেয়ার করে জামাইরা বউকে নিয়ে শ্বশুরবাড়ি যাবেই। এখানে হরিপদ কেরাণি থেকে এম এন সির  সি ই ও, কেউ বাদ যান না। মাগ্গিগণ্ডার বাজারেও শ্বশুর- শাশুড়ির তরফে যে আপ্যায়নের ত্রুটি থাকবে না, তা বলাই বাহুল্য। শ্যালক-শ্যালিকারা তো জামাইবাবু তথা জিজাজিদের কোনও রকম অযত্ন হতে দেবে না। কিন্তু এই জামাইষষ্ঠী অনুষ্ঠানটি ঠিক কতটা প্রাচীন, সে নিয়ে সংশয় আছেই।


ফিরে পড়া ইতিহাস
'হিন্দুর আচার-অনুষ্ঠান' বইটিতে প্রখ্যাত লেখক চিন্তাহরণ চক্রবর্তী লিখেছেন, কোনও ধর্মানুষ্ঠানের সঙ্গে এর প্রত্যক্ষ বা ঘনিষ্ঠ সম্বন্ধ নেই। একটি অনতিপ্রাচীন লোকাচারের সঙ্গে নাকি এর যোগসূত্র আছে। লোকাচার বললেই অরণ্যষষ্ঠীর নামই আসে প্রথমে। অন্যান্য পাঁচটা ব্রতের মতই মেয়েরা এটি পালন করত। পূর্ববঙ্গে এর চল বেশি ছিল। সেখানে প্রায় প্রত্যেক সন্তানবতী রমণী এই ব্রত পালন করত। এই ব্রতে সন্তান-সন্ততির জন্যে মা-ষষ্ঠীর আরাধনা করা হয়।

অরণ্য়ষষ্ঠীর সাতকাহন

অরণ্যষষ্ঠী সম্পর্কে বলা হয়,- জ্যৈষ্ঠমাসের শুক্ল পক্ষের ষষ্ঠীতে মহিলারা একহাতে পাখা নিয়ে বনে বিচরণ করেন-বিন্ধ্যবাসিনী ষষ্ঠী দেবীকে পুজো করেন, কন্দ ফলমূল আহার করেন এবং পরিণামে শুভ সন্ততি লাভ করেন। এখন আর বনে পুজোর প্রচলন নেই। বাড়ির মধ্যে বটের ডাল পুতে তার তলায়  পিটুলি,হলুদবাটা ও ভুষো কালি দিয়ে ষষ্ঠী দেবী, তার বাচ্চাকাচ্চা ও বাহন বিড়ালের মূর্তি তৈরি করে পুজো করা হয়। পুজো শেষে ব্রতকারিণীরা বটপাতার উপরে রাখা ষষ্ঠীদেবীর সন্তানসন্ততির মূর্তিগুলো হাতে নিয়ে ব্রতকথা শুনতেন। ব্রতকথাটি অনেকের অজানা। সমুদ্রসেন নামক সওদাগর আর তার সর্বাঙ্গসুন্দরী কন্যা সুমনার কাহিনী। হিরণ্যরাজের পুত্রের হাতে পড়ে তার কী অবস্থা হল, তার বিবরণ।

এই লেখকের অন্য লেখাঃ  বাঙালির ১৩০ বছরের ভুলের বোঝা কমল, জ্ঞানেন্দ্রমোহনের কবরের সামনে দাঁড়িয়ে আমি

নামের ফেরে ভোলবদল

অনেক বাড়িতে জামাইষষ্ঠী পালনের রেওয়াজ নেই। বেশ পয়সাওলা বাড়িতেও দেখেছি এটা। অথচ তারা দশটা জামাইকে ডেকে তিন দিন খাওয়াতে পারে। 'কেন নেই আপনাদের এই পর্বটি'?জিজ্ঞেস করলে কোনও সুদূর অতীতে এই বিশেষ দিনে এক জীবনহানির গল্প বলেন অনেকে। পূর্ববঙ্গীয় অনেক বাড়িতে নাকি এদিন জামাইদের নিমন্ত্রণ করা হয় না। মেয়েকেই শুধু ডাকা হয়। এটা নিয়ে চিন্তা করতে করতে বছর পনেরো আগে জামাই শব্দের কাছাকাছি কী শব্দ আছে, সেটা দেখার জন্যে অশোক মুখোপাধ্যায়ের সমার্থ শব্দকোষ ঘাঁটতে শুরু করি। 'জামি' শব্দটি তদবধি আমার অজানা ছিল। অর্থ দেখলাম সধবা বধূ, কুলবধূ বা এয়োস্ত্রী। তা হলে কি আদতে অনুষ্ঠানটি 'জামিষষ্ঠী' বা 'জাময়ষষ্ঠী' ছিল? জামির বহুবচন জাময়ঃ। মূলত সন্তানলাভের জন্য মা ষষ্ঠীর ব্রত এটি। আগে নাম ছিল অরণ্যষষ্ঠী। বনে গিয়ে পাখার হাওয়ায় মা ষষ্ঠীকে তুষ্ট করা হত। ফলমূল আহার বিধেয় ছিল। এখনকার মত জামাইবাবাজীবনদের ভূরিভোজের আয়োজন হত না। মূলত পুরুষতান্ত্রিক সমাজের চাপে প্রাচীন এই লোকাচারটি নাম বদলে জামাইষষ্ঠী রূপে দেখা দিল। শ্যালিকাসমভিব্যাহারে ভালোই খানাপিনা শুরু হল বাঙালির সুখী গৃহকোণে।এরও একটা কারণ আছে। দু'তিনশো বছর আগে পরিবহনবিহীন গ্রাম্য রাস্তায় বউ তো আর একা বাচ্চাকাচ্চাদের নিয়ে পিত্রালয়ে যেতে পারে না। সঙ্গে স্বামীটিকে বগলদাবা করে নিয়ে যেতেই হয়। বেচারা স্বামী তো আর 'আমার ব্রত নয়' বলে বাড়ি চলে আসতে পারে না! তাঁর লাগি খানাপিনার ব্যবস্থা করতেই হয়। অনেক ক্রোশ হেঁটেছেন। ভদ্রলোকের ছেলে বলে কথা। এইটাই আস্তে আস্তে রেওয়াজ হল। আমূল বদলে গেল কালচার-লোকাচারের ব্যাখ্যাটি।কেন অনেক বাড়িতে জামাইয়ের কদর নেই এই বিশেষ দিনটিতে,তা বুঝতে অসুবিধে হওয়ার কথা নয়। 

শ্বশুড়মশাই জিন্দাবাদ

জেন ওয়াই জামাইদের কদর এখন অন্যভাবে করছেন হালফিলের শাশুড়িঠাকরুনরা। কলকাতার বুকে গজিয়ে ওঠা জমকালো ঝাঁচকচকে রেস্তোঁরাগুলিতে এই বিশেষ দিনটিতে টেবিল পাওয়াই সমস্যা। যাঁরা ভাগ্যবান তাঁরা জামাইকে হরেকরকম পদ থরে থরে সাজিয়ে ভূরিভোজ করান। সঙ্গে নিজেদেরটাও সারেন। এই ব্যবস্থাটার একটা ভাল দিক হল, রান্নাঘরের ভ্যাপসা গরমে কাহিল হতে হয় না, পকেটে রেস্ত থাকলেই হল। মেয়েজামাইও খুশ। তবে শ্বশুরশাশুড়ির সঙ্গে একসাথে সুরাসাকির রস উপভোগ কেউ করেন কিনা তা আমার অন্তত জানা নেই।


লেখক পরিচিতঃ অসিত দাস পেশায় চিকিৎসক। ইএসআই প্যানেলে কুড়ি বছর চিকিৎসা করেছেন। বর্তমানে প্রাইভেট প্র্যাকটিসনার। তাঁর প্রকাশিত বইগুলি যথা 'এখন কালিকোটির ইতিকথা', 'নামধামের উৎসকথা', 'নেমপ্লেট', 'পঞ্চানন কুশারীর কবিয়ালি' বিশেষ ভাবে সমাদৃত।