শহরে আলু-পেঁয়াজের কালোবাজারি কুপোকাত করতে অভিযান চালাল কলকাতা পুলিশের ইবি অর্থাৎ এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ। রাজ্য সরকারের নির্দেশিকা জারি করার পরেই  শহরের একাধিক বাজারে অভিযান চালায় ইবি এবং পাশপাশি তাঁদের সচেতনও করেন। 

 

 

পেঁয়াজ নিয়ে কী নির্দেশিকা জারি করেছে সরকার


বৃহস্পতিবার পেঁয়াজ নিয়ে নির্দেশিকা জারি করেছে রাজ্য সরকার। যে কোনও পাইকারি বিক্রেতা ২৫ মেট্রিক টন ও খুচরো বিক্রেতা দুই মেট্রিক টন ও খুচরো বিক্রেতা ২ মেট্রিক টনের বেশি পেঁয়াজ মজুত রাখতে পারবেন না। এদিকে শুক্রবারও এই নির্দেশিকার কথা শহর ও শহরতলির বহু ব্যবসায়ীরাই জানতেন না। রাজ্য সরকারের নির্দেশিকা জারি করার পরেই  শহরের একাধিক বাজারে ৪ টিম নিয়ে অভিযান চালায়  ইবি।  যে সকল বিক্রেতারা কিছুই জানতেন না, পাশপাশি তাঁদের সচেতনও করেন। 

 

 

 দাম বেশি কেন জানতে চাওয়ায় অদ্ভুত ব্যাখ্যা বিক্রেতাদের


ডিসি (ইবি) বিশ্বজিত ঘোষ জানিয়েছেন, উত্তর ও দক্ষিণের বাজারগুলিতে কলকাতা পুলিশের আধিকারিকরা পেঁয়াজের খুচরো ও পাইকারি দোকানে যান। তাঁদের কাগজপত্র এবং পেঁয়াজের মজুত পরীক্ষা করেন। তবে অতিরিক্ত মজুত কেউ করে রেখেছেন, এমন প্রমাণ এখনও মেলেনি বলে জানান  ডিসি। তবে দেখা যায়, উত্তর থেকে দক্ষিণ কলকাতায় পেঁয়াজের দাম অনেকটাই বেশি। তবে বাজারে ঘোরার পর আলু দাম বেশি কেন জানতে চাওয়ায় বিক্রেতা অদ্ভুত ব্যাখ্যা দেন। বিক্রেতারা বলেন, আলুর বস্তায় কাটা-ফাঁটা বা সামান্য় দাগ পড়া আলু ক্রেতারা নিতে চান না। ফলে সেগুলি বিক্রি করতে না পারায় দামটা বেড়ে যায়।