কোভিডের ভয়াবহতার মাঝেই বাড়ছে ব্ল্য়াক ফাংগাসের সংক্রমণ। উল্লেখ্য, কলকাতায়  ব্ল্যাক ফাংগাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম মৃত্যু হয় এক যুবতির। তবে ব্ল্য়াক ফাংগাসে সংক্রমিতের সংখ্যার পাশপাশি বেড়েছে মৃত্যুর সংখ্যাও। 

আরও পড়ুন, Cyclone Yaas LIVE - শক্তি হারিয়ে ঝাড়খন্ডের দিকে সরে গিয়েছে যশ, বঙ্গে উদ্ধারকাজ চলছে আজও 

 

 

রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে খবর, পশ্চিমবঙ্গে ব্ল্য়াক ফাংগাসের সংক্রমণ ক্রমশ বাড়ছে।নতুন করে রাজ্যে মিউকরমাইকোসিসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৮ জন। এর মধ্য়ে ১২ জনের শরীরে রোগের লক্ষণ স্পষ্ট। বাকি ৬ জন সন্দেহভাজন। তাঁদের পরীক্ষা চলছে। অপরদিকে ব্ল্যাক ফাংগাস অর্থাৎ মিউকরমাইকোসিসে আক্রান্ত হয়ে মৃত এমন সন্দেহভাজনের সংখ্যা ৩ জন। উল্লেখ্য, কলকাতায়  ব্ল্যাক ফাংগাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম মৃত্যু হয় এক যুবতির। শম্ভুনাথ পণ্ডিত হাসাপাতালে  ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত  ৩২ এর এ শম্পা চক্রবর্তী চিকিৎসাধীন অবস্থায় প্রাণ হারিয়েছিলেন। কোভিড রোগীরা বেশি দিন আইসিইউ তে থাকলেও বা তাঁদের উপরে স্টেরয়েডর ব্যবহার বেশি হলে রোগ প্রতিরোধ কমে যায়। তখনই ব্ল্যাক ফাংগাস শরীরে ঢুকে পড়ে। এই যুবতীর ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে।  

আরও পড়ুন, আজই নারদ-মামলায় ৪ হেভিওয়েটের ভাগ্য নির্ধারণ, ঘূর্ণিঝড়ের বিপদ কাটতেই নির্দেশ হাইকোর্টের  

 


 প্রসঙ্গত,  এই ব্ল্যাক ফাংগাস বা কালো ছত্রাকে কেউ আক্রান্ত হলে কেন্দ্রকে সে খবর জানাতে হবে।   ব্ল্যাক ফাংগাস বা মিউকরমাইকোসিস এই বিরল রোগে আক্রান্ত হয়ে শহরে আসেন ৪ জন। তাঁরা বিহার এবং ঝাড়খন্ডের বাসিন্দা। তাঁদের এই সংক্রমণ ধরা পড়ে ৭ মে থেকে ১৩ মে-র মধ্য়ে। এবং এখানে আশঙ্কার বিষয় এটাই যে এই  ৪ জন রোগীই আগে আক্রান্ত হয়েছিলেন কোভিডে। কোভিড থেকে সেরে উঠতেই আক্রান্ত হন  ব্ল্যাক ফাংগাস বা মিউকরমাইকোসিস বিরল রোগে।  মিউকরমাইকোসিস এই বিরল রোগ মিউকরমাইসেটিস ফাঙ্গি থেকে হয় । যা  সরাসরি মস্তিষ্ক, সাইনাস এবং ফুসফুসকে আক্রমণ করে। সাইনাসের যন্ত্রণা, নাক বন্ধ হয়ে যাওয়া, মাথা ব্যাথা, ফোলা ভাব, দাঁতে ব্যাথা এই রোগের প্রথামিক উপসর্গ। ডায়বেটিকদের ক্ষেত্রে এই রোগ খুব আশঙ্কা জনক।