কাশ্মীর ইস্যুতে আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলির হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। আর এরই মাঝে রাষ্ট্রসঙ্ঘের মহাসচিব আন্তোনিয়ো গুতেরেজ তাঁকে আরও একবার মনে করিয়ে দিলেন যে, ১৯৭২-এর শিমলা চুক্তির কথা। পাশাপাশি দুই পড়শি দেশের কাছে তিনি অনুরোধ জানিয়েছেন যে, দুই দেশ যাতে যথা সম্ভব সংযম বজায় রাখেন। 

রাষ্ট্রসঙ্ঘের মহাসচিব আন্তোনিয়ো গুতেরেজ ফের শিমলা চুক্তির প্রসঙ্গ তুলে বলেন যে, সেখানে স্পষ্ট বলা রয়েছে যে কাশ্মীর সমস্যা দুই দেশের একটি দ্বিপাক্ষিক সমস্যা।  প্রসঙ্গত জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ ক্ষমতা প্রদানকারী ৩৭০ ধারা বাতিল করা এবং জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখ-কে দুটি আলাদা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসাবে স্বীকৃতি দেওয়া  নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তার প্রতিবাদ করেছে পাকিস্তান। পাশাপাশি পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দাবি, মোদী সরকারের সেনাবাহিনী, যেভাবে কাশ্মীরিদের উপর অত্যাচার করছে তা প্রতিরোধে করতেই আন্তর্জাতিক সংগঠনের হস্তক্ষেপের প্রয়োজন রয়েছে। 

উপত্যকায় শান্তি রক্ষার জের, অন্তত ৭০ জন বিচ্ছিন্নতাবাদীকে কাশ্মীর থেকে আনা হল আগ্রায়

প্রবল বৃষ্টির জের, কেরলের ওয়ানাড়ে ভূমিধসে বহু মানুষের হতাহতের আশঙ্কা

প্রসঙ্গত বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেওয়া কয়েক ঘণ্টা পরই ইমরান খান বলেন, গোটা বিশ্বই দেখার অপেক্ষায় রয়েছে কাশ্মীরে বসবাসকারী কাশ্মীরিদের সঙ্গে ঠিক কী কী করা হয়। পাকিস্তানের তৃতীয়পক্ষের হস্তক্ষেপের দাবি খারিজ করা হলেও রাষ্ট্রসঙ্ঘের মহাসচিব আন্তোনিয়ো গুতেরেজ প্রশ্ন তুলেছেন কাশ্মীরিদের মানবাধিকার নিয়ে। পাশাপাশি কাশ্মীরে ভারতীয় সেনার কড়াকড়ি নিয়ে উদ্বেগও প্রকাশ করেছেন তিনি।