করোনা টিকা ফাইজারের ৫০ কোটি ডোজ কিনবে আমেরিকা। রাষ্ট্রসংঘের কোভ্যাক্স গ্লোবাল ভ্যাকসিন শেয়ারিং কর্মসূচির মাধ্যমে এই টিকাগুলি কিনবে তারা। এরপর তা ৯২টি স্বল্প আয়ের দেশ ও আফ্রিকান ইউনিয়নের কাছে তা বণ্টন করা হবে। বুধবার হোয়াইট হাউজ ঘনিষ্ঠ এক ব্যক্তির তরফে একথা জানা গিয়েছে।

বৃহস্পতিবার জি ৭ সম্মেলন শুরু আগে নিজের ভাষণে স্বল্প আয়ের দেশগুলিকে টিকা বণ্টনের কথা ঘোষণা করবেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। টিকার ২০ কোটি ডোজ চলতি বছরেই দান করা হবে। ১০ কোটি মানুষের সুরক্ষার জন্য ২০ কোটি টিকা পর্যাপ্ত বলেই মনে করেন তিনি। এরপর বাকি টিকা ২০২২ সালের প্রথমার্ধেই দান করা হবে বলে বলে জানা গিয়েছে। 

আরও পড়ুন- বেড়ে গেল মহাসাগরের সংখ্যা, পৃথিবীর পঞ্চম মহাসাগর এখন 'সাদার্ন ওশান'

জাতীয় সুরক্ষা উপদেষ্টা জেক সুলিভান বলেন, আমেরিকার জনস্বাস্থ্য এবং কৌশলগত স্বার্থের কারণেই এই টিকা দান করার জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বাইডেন। চলতি বছরের জুনের শেষে বিশ্বব্যাপী ৮ কোটি ডোজ দান করা হবে বলে হোয়াইট হাউজের তরফে জানানো হয়েছে। যার মধ্যে বেশিরভাগই দেওয়া হবে কোভ্যাক্সের মাধ্যমে।

টিকা বণ্টন নিয়ে আন্তর্জাতিক সহ অভ্যন্তরীণ চাপের মুখে পড়েছিলেন জো বাইডেন। এরপরই প্রথম দফায় ২কোটি ৫০ লক্ষ টিকা বিশ্বের একাধিক দেশকে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন তিনি। জো বাইডেন জানিয়েছে, রাষ্ট্রসংঘের কোভ্যাক্স গ্লোবাল ভ্যাকসিন শেয়ারিং প্রোগ্রামের মাধ্যমে গোটা বিশ্বে ৭৫ শতাংশ বাড়তি ভ্যাকসিন বিতরণ করবে আমেরিকা। এই ২কোটি ৫০ লক্ষ টিকার মধ্যে ৬০ লক্ষ টিকা পাবে ভারত, দক্ষিণ কোরিয়া, ম্যাক্সিকো এবং কানাডা।

প্রয়োজন ও সঙ্কটের ভিত্তিতে সরাসরি দেশেগুলিতে এই টিকা দেওয়া হবে। এই সিদ্ধান্তের পরই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ফোন করেন আমেরিকার ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস। এছাড়াও মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট আন্দ্রে ম্যানুয়েল লোপাজ ওব্রাডর, গুয়েতামালার প্রেসিডেন্ট অ্যালোজান্দ্রো গিয়াম্মাত্তেই, ক্যারিবিয়ান কমিউনিটির চেয়ারম্যান তথা প্রধানমন্ত্রী কেথ রোলের সঙ্গেও কথায় কমলার।