ভেঙেছিল ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মূর্তি। সেই মূর্তি তো হচ্ছেই, তার সঙ্গে বই পাড়ায় রবীন্দ্রনাথের মূর্তিও গড়ে দেবে রাজ্য। 

সপ্তম দফার নির্বাচনের আগে কলকাতায় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের রোড শো চলাকালীন অশান্তি ছড়ায়। তারই জেরে বিধান সরণীর উপরে বিদ্যাসাগর কলেজে ঢুকে পড়ে একদল দুষ্কৃতী। কলেজের ভিতরে তাণ্ডব চালানোর সময়  আছড়ে ভেঙে ফেলা হয় বহু পুরনো বিদ্যাসাগরের মূর্তি। যা নিয়ে রাজনৈতিক চাপানউতোর তুঙ্গে ওঠে। সেদিনই ঘটনাস্থলে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, ভোট মিটলেই ওই জায়গাতেই ফের বিদ্যাসাগরের মূর্তি গড়ে দেবে রাজ্য। এর পরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী দাবি করেন, তাঁরা ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের পঞ্চধাতুর মূর্তি গড়ে দেবেন। সেই প্রস্তাব অব্শ্য খারিজ করে দেন মমতা। 

মমতার প্রতিশ্রুতি মতোই মঙ্গলবার শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানান, ভেঙে যাওয়া বিদ্যাসাগরের মূর্তি ফের তৈরির উদ্যোগ নিচ্ছে রাজ্য। এর জন্য দেশের নামী ভাস্করদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে। শুধু বিদ্যাসাগরের মূর্তি নয়, তার সঙ্গে বিদ্যাসাগর  কলেজেই তাঁর নামে একটি সংগ্রহশালাও তৈরি করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী। এর পাশাপাশি কলেজ স্ট্রিটে প্রেসিডেন্সি কলেজে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একটি মূর্তিও বসানো হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

বিদ্যাসাগর মূর্তি ভাঙার ঘটনা নিয়ে যে তিনি বিজেপি-তে কোনও জায়গা ছাড়বেন না, তা ইতিমধ্যেই বুঝিয়ে দিয়েছেন মমতা। সোমবারই মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, রাজ্যের তরফে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙচুরের ঘটনায় দোষীদের খুঁজে বের করতে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গড়েছে রাজ্য। রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে সেই কমিটিতে রয়েছেন কলকাতার নগরপাল এবং বিদ্যাসাগর কলেজের প্রিন্সিপালও।