পড়ুয়াদের আন্দোলনে চাপে হস্টেলে ফি কমেছে দিল্লির জেএনইউ বিশ্ববিদ্যালয়ে, তখন সেমেস্টারের ফি দেওয়াকে কেন্দ্র করে তুলকালাম কাণ্ড বারাসতে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্য়ালয়ে। খোদ উপাচার্যের বিরুদ্ধে মারধরের অভিযোগে তুলে বিক্ষোভ শামিল পড়ুয়ারা। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটও। এই ঘটনায় নিয়ে অবশ্য মুখে কুলুপ এঁটেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। 

এ রাজ্যে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে উঠেছে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। বারাসতে অ্যাডামাস বিশ্ববিদ্যালয়ের  নামডাকও যথেষ্ট। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন বিষয়ে স্নাতক, এমনকী স্নাতকোত্তর স্তরেও পঠনপাঠন চলে। তবে পড়াশোনার খরচ শুনলে চোখে কপাল উঠবে অনেকেরই। কিন্তু পড়ুয়ার আর তো অভাব নেই! সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা কলেজে ভর্তির সুযোগ না পেয়ে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তিও হন অনেকেই। তবে সেমিস্টারে ফি জমা দিতে গিয়ে নাজেহাল অবস্থা হয় পড়ুয়াদের। বারাসতে অ্যাডামাস বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়াদের দাবি, চলতি মাসেই সেমেস্টারের ফি মিটিয়ে দিতে বলেছেন উপাচার্য।  কিন্তু একজন পড়ুয়া এখনও পর্যন্ত ফি জমা দিতে পারেননি। স্রেফ এই কারণে উপাচার্য তাঁর পরিচয়পত্র কেড়ে নেন বলে অভিযোগ। ওই পড়ুয়ার সহপাঠীদের বক্তব্য়, যখন উপাচার্যের পরিচয়পত্রটি চাইতে যান, তখন তা ফেরত দেওয়া দূর, উল্টে তিনি পড়ুয়াদের মারধর করেন। ঘটনাটি জানাজানি হতে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে বারাসতে অ্যাডামাস বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে। সকাল থেকেই ক্যাম্পাসে তুমুল বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন পড়ুয়া। বন্ধ বিশ্ববিদ্যালয়ের গেট, শিকেয় উঠেছে পঠনপাঠন। ঘটনার যতক্ষণ পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ করছে, ততক্ষণ বিক্ষোভ চালিয়ে যাবেন তাঁরা।

কী বলছেন অ্যাডামাস বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ? এই ঘটনা নিয়ে উপাচার্য বা বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়। স্থানীয় বাসিন্দাদের অবশ্য দাবি, এবারই প্রথম নয়। বিভিন্ন ইস্যুতে অ্যাডামাস বিশ্ববিদ্যালয়ে অশান্তি লেগেই থাকে।