উস্কানিমূলক মন্তব্যের জন্য দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে ভারতীয় জনতা পার্টির প্রার্থী কপিল মিশ্র-কে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠালো নির্বাচন কমিশন। রাজধানীতে যে এলাকাগুলিতে সিএএ বিরোধী বিক্ষোভ হচ্ছে, সেই জায়গাগুলিকে 'মিনি-পাকিস্তান' বলেন তিনি। সেই সঙ্গে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচন-কে বলেন 'দিল্লির রাস্তায় ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সংঘর্ষ'।

বৃহহস্পতিবার একাধিক উস্কানিমূলক টুইটে, মডেল টাউন কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী আরও বলেন, পাকিস্তানি দাঙ্গাবাজরা দিল্লির রাস্তাগুলি দখল করে নিয়েছে। অবশ্য সরাসরি তিনি নাগরিকত্ব (সংশোধনী) আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলনকারীদের কথা বলেননি। তবে আকারে ইঙ্গিতে শাহীনবাগ-সহ রাজধানির অন্যান্য জায়গাগুলির বিক্ষোভকারীদের তীব্র আক্রমণ করেছেন।

এখানেই থামেননি তিনি। হিন্দিতে করা টুইটে আরও দাবি করেন, শাহীনবাগে নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে  যে প্রতিবাদ হচ্ছে তা পাকিস্তানের স্পনসর করা। তিনি লেখেন, 'পাকিস্তান শাহীনবাগে প্রবেশ করেছে। দিল্লিতে মিনি পাকিস্তান তৈরি হয়েছে। শাহীনবাগ, চাঁদবাগ এবং ইন্দ্রলোকের মতো এলাকায় ভারতীয় আইন মানা হচ্ছে না। পাকিস্তানের দাঙ্গাবাজরা দিল্লির রাস্তা দখল করেছে'।

স্বাভাবিকভাবেই, তাঁর এই ধরণের মন্তবব্য নিয়ে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করে বিরোধীরা। আপ দলের পক্ষ থেকে তাঁর বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানানো হয়। তারপরই ভারতের নির্বাচন কমিশন (ইসিআই) তাঁর এই বিতর্কিত বক্তব্য নিয়ে দিল্লির প্রধান নির্বাচনী কর্মকর্তা (সিইও)-র কাছে একটি প্রতিবেদন চেয়ে পাঠিয়েছে। একইসঙ্গে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠানো হয়েছে আম আদমি পার্টি থেকে জার্সি বদলে গেরুয়া শিবিরে আসা কপিল মিশ্রকে।

তবে নির্বাচন কমিশনের এই শোকজ নোটিশ নিয়ে আদৌ চিন্তিত নন, কপিল। বিজেপি নেতা বলেছেন, তিনি নির্বাচন কমিশনের নোটিশের জবাব দেবেন। তিনি যা বলেছে, তা সব সত্যি দাবি করে তিনি বলেন, সেই কথা কমিশনকে জানাতে তাঁর কোনও অসুবিধা নেই। তিনি তাঁর মত থেকে সরবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন তিনি। তাঁর প্রার্থী পদও বাতিল হবে না বলে তাঁর স্থির বিশ্বাস।